লাইফস্টাইলহেলথ

মা কোভিড পজিটিভ হলে স্তন্যপানে শিশু কতটা নিরাপদ?

মহানগরবার্তা ওয়েব ডেস্ক : শিশুর স্বাস্থ্য এবং মায়ের দুধ একেবারেই ওতোপ্রতোভাবে জড়িত। একটি শিশুর সুস্বাস্থ্যের প্রয়োজনে মায়ের ব্রেস্ট মিল্কের চেয়ে ভালো আর কিছু নেই।কোনো শিশু ৬ মাস পর্যন্ত স্তন্যপান করলে,তার শরীরে পৌঁছে যায় গুরুত্বপূর্ণ পুষ্টি। বিভিন্ন সময়ে নানা গবেষণার মাধ্যমে এই তথ্য প্রমাণিত হয়েছে। প্রতি বছর ১ লা অগস্ট থেকে ৭ ই আগস্ট পর্যন্ত দুনিয়া জুড়ে পালিত হয় বিশ্ব ব্রেস্ট ফিডিং উইক।

বর্তমানে গোটা বিশ্ব এখন করোনা প্রসঙ্গে আতঙ্কগ্রস্থ। ঠিক এইরকম সময়েই একটি প্রশ্ন বারবার উঠে আসছে, যে এই কঠিন পরিস্থিতিতে শিশুদের জন্যে ব্রেস্টফিড কতটা নিরাপদ। বিশ্ব ব্রেস্টফিড উইক,এই উপলক্ষ্যে আয়োজন করা হয় একটি বিশেষ অনলাইন প্রেজেন্টেশনের। এবং সেখানেই দয়ানন্দ মেডিকাল কলেজ ও হাসপাতালের পিডিয়াট্রিক্স অ্যান্ড অবস্টেট্রিক্স ও গাইনিকোলজি বিভাগের সিনিয়র রেসিডেন্ট চিকিত্‍সকরা এই বিষয়ে আলোচনার সভা বসিয়েছিলেন।

তাদের মতে, আগামী দু বছর যাবত শিশুদের মাতৃদুগ্ধ পান করানো উচিত।তাতে শিশুদের শরীরে এক প্রকার অ্যান্টিবডির সৃষ্টি হয়,যা রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়।

পিডিয়াট্রিক্স বিভাগের প্রধান ডা. পুনীত আউলাখ পুনি এবং অবস্টেট্রিক্স ও গাইনিকোলজি বিভাগের প্রধান ডা. অসীমা তানেজা এই অনলাইন আলোচনা সভার মধ্যে দিয়ে তুলে ধরেছিলেন, এই প্যানডেমিকের মধ্যে স্তন্যপানের গুরুত্ব ঠিক কতটা। এবং সেই সঙ্গে তার প্রয়োজনীয়তা এবং উপকারিতা কতটা। জেনে নেওয়া যাক–

১. মাতৃদুগ্ধে করোনা ভাইরাস থাকে না।

২. গবেষণার মাধ্যমে জানা গেছে, ব্রেস্ট মিল্কে করোনার সঙ্গে লড়াই করার জন্যে প্রয়োজনীয় অ্যান্টিবডিও রয়েছে। যদি কখনও কোনও শিশু করোনা আক্রান্ত হয়েও পড়ে, তাহলে বিপদের কোনও লক্ষণ এখনও পর্যন্ত দেখা যায়নি।

৩. এবং গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয়ে সবার প্রথম নিশ্চিত হওয়া দরকার যে অন্তঃসত্ত্বা নারীদের কোভিড আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা আর পাঁচ জনের চেয়ে বেশি একদমই তার নয়।

৪.অন্তঃসত্ত্বা অবস্থায় মা করোনা আক্রান্ত হলেও, তার প্রভাব গর্ভস্থ সন্তানের উপর পড়ে না।

৫. এবং এই সেশনে চিকিৎসকদের বলা সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ একটি কথা এই যে, যদি মা করোনা আক্রান্ত হয়েও পড়ে তারপরেও তিনি নিশ্চিন্তে সন্তানকে স্তন্যপান করাতে পারেন। এতে তার শিশুর কোনও ক্ষতি হবে না। বরং লড়াইয়ের ক্ষমতা তৈরি হবে।

Tags

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close
Close