জেলা

১২ বছর বয়সেই বাংলার সেরা শিরোপা, গ্রাম পেরিয়ে বিদেশ পাড়ি হাওড়ার প্রিয়ঞ্জনার

নিজস্ব প্রতিনিধি, হাওড়া: মাত্র ১২ বছর বয়স। প্রতিভার জোরে এই বয়সেই বিদেশের মাটিতে পা রাখতে চলেছে হাওড়া জেলার নাওদা নয়নচন্দ্র বিদ্যাপীঠের সপ্তম শ্রেণির ছাত্রী প্রিয়ঞ্জনা জানা। চলতি বছরের গত ২৭ থেকে ২৯ মে মহারাষ্ট্রের,ঔরাঙ্গাবাদে অনুষ্ঠিত হয় ৩৪ তম সর্বভারতীয় যোগাসন প্রতিযোগিতা। সেখানে রিদমিক যোগাসন বিভাগে ১৮০ জন অংশগ্রহণকারীর মধ্যে বাংলার হয়ে প্রতিনিধিত্ব করে, তৃতীয় স্থান অধিকার করেছে হাওড়ার,শ্যামপুরের প্রিয়ঞ্জনা।

জাতীয় স্তরে এই সাফল্যের পর তার ডাক এসেছে আন্তর্জাতিক স্তরে দেশের হয়ে প্রতিনিধিত্ব করার। বাইশ সালেরই অক্টোবর মাসে থাইল্যান্ডের রাজধানী, ব্যাংককে অনুষ্ঠিত হতে চলেছে আন্তর্জাতিক যোগাসন প্রতিযোগিতা। সেখানে অংশগ্রহণ করার সুযোগ পেয়েছে প্রিয়ঞ্জনা। তাঁর এই সাফল্যে আনন্দের জোয়ার গোটা পরিবার সহ গোটা গ্রামে। গত ১লা জুন বুধবার মহারাষ্ট্র থেকে শ্যামপুরের বাড়িতে ফেরার পর স্কুল কর্তৃপক্ষের তরফ থেকে সম্বর্ধনা জানানো হয় প্রিয়ঞ্জনাকে।উপস্থিত ছিলেন শ্যামপুর ২ নম্বর ব্লকের বিডিও ফারহানাজ খানম, স্কুলের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক অরুণাভ বাজানি সহ একাধিক বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ।

এদিকে,মেয়ের সাফল্যে উচ্ছ্বাসের মাঝেও কপালে চিন্তার ভাঁজ পরিবারের সদস্যদের। কারণ প্রিয়তম জানা অর্থাৎ প্রিয়ঞ্জনার বাবা পেশায় বিদ্যুৎ দপ্তরের ঠিকাকর্মী। মাস গেলে যা মাইনে পান তা দিয়ে কোনরকমে চলে তাঁদের সংসার। এমতো অবস্থায় তিনি কি ভাবে মেয়েকে নিয়ে সুদূর ব্যাংককে পাড়ি দেবেন সেই প্রশ্নই দিনরাত ভাবাচ্ছে তার পরিবারকে। অর্থাৎ অর্থ সংকটের জেরে প্রিয়ঞ্জনার ব্যংককে যাওয়া কিন্তু এখনও অনিশ্চিত। এপ্রসঙ্গে প্রিয়ঞ্জনার মা বুল্টি জানা বলেন “মেয়ের সাফল্যের ব্যাপারে আমরা খুবই আশাবাদী, তবে প্রশাসনিক বা কোনো স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন যদি আমাদের পাশে এসে দাঁড়ায়, তবে প্রিয়ঞ্জনার ব্যাংকক যাওয়া সুনিশ্চিত হবে।”

 

Tags

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button
নিজের লেখা নিজে লিখুন
Close
Close