মহানগররাজনীতি

‘আমি আইন জানিনা?’ অরুণাভকে উচিত জবাব দিলেন বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়

মহানগর বার্তা ওয়েবডেস্কঃ তাঁদের মধ্যে বাকবিতন্ডা লেগেই থাকে। অনেকের মতে দু’জনের মধ্যে সম্পর্কটাও ‘সাপে-নেউলে’। তাঁরা কারা? বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায় (Abhijit Gangopadhyay) এবং আইনজীবী অরুণাভ ঘোষ। আদালত চত্বরে এই দুই প্রথিতযশা আইনজীবীর মধ্যে সংঘাত সর্বজনবিদিত। ‘জ্যাঠামশাই’ থেকে শুরু করে ‘ছাতুবাবুর বাজার’— ইত্যাদি শব্দবন্ধ নিয়ে হাইকোর্টে (Calcutta High Court) বিতর্ক কম হয়নি। এমনকি ‘আইনের কিছু জানেন না’, বলে বিচারপতি গঙ্গোপাধ্যায়কে অরুণাভর মন্তব্য নিয়েও অনেক জলঘোলা হয়েছে। এবার সেই নিয়েই ভরা এজলাসে অরুণাভর সমালোচনা করে বিচারপতি গঙ্গোপাধ্যায় বলেন, আমি আইন জানি না? আমার গুরুদেব কে জানেন? আমার গুরু আইনজীবী সলিল গঙ্গোপাধ্যায়। আমি তার কাছ থেকেই আইন শিখেছি।”

আরও পড়ুন: ভিটেমাটির টান! ৭৬ বছর পর আদি বাড়ি খুঁজতে বাংলাদেশ পাড়ি হাওড়ার গায়ত্রীর

এটুকুতেই থেমে থাকেননি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়। তিনি আরও বলেন, “অনেকেই ১৭ (সি) ও ১৬৫ আইনের ধারা সম্পর্কে জানেন না। এই মামলাতে আমি এই ধারা দুটির প্রয়োগ করেছি। এই ধারা ভুল হলে আমাকে তা কেউ প্রমাণ করে দেখাক। এখনো পর্যন্ত আমাকে কেউ ভুল প্রমাণ করে দেখাতে পারেননি।”

এরপর তিনি বলেন যে, ‘ন্যাচারাল জাস্টিস নিয়ে অনেকেই অনেক কথা বলেন। কিন্তু তার বাস্তবায়ন রূপ সম্পর্কে অনেকেই হয়তো অনেক কিছু জানেন না।’ পরোক্ষভাবে অরুনাভ ঘোষকে ইঙ্গিত করে তাঁকে বলতে শোনা যায়, ‘অস্থায়ী চাকরি মামলায় আমার জাজমেন্টকে ভরসা করেই রায় দেওয়া হয়েছে।’

আরও পড়ুন: ৫৭০ ভরির গয়না এখন অতীত, জেলে নকুলদানা দিয়ে কালীপুজো সারলেন কেষ্ট

প্রসঙ্গত, গত ১৮ই আগস্ট একটি সংবাদ মাধ্যমে আইনজীবী অরুণাভ ঘোষ বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়ের (Abhijit Gangopadhyay) উদ্দেশ্যে বলেন, “কোর্টটাকে আপনি ছাতুবাবুর বাজার বানিয়ে ফেলেছেন। আপনি আইনের এবিসিডি জানেন না।” এই কথা বলার পরেই প্রধানত ‘ছাতুবাবুর বাজার’ শব্দ বন্ধনী উল্লেখ করার কারণে অরুনাভ ঘোষের উপরে রীতিমতো চটে গিয়েছিলেন বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়। এরপরই তিনি নিজের আইনি অভিজ্ঞতা বোঝানোর জন্য নিজের গুরু আইনজীবী সলিল গঙ্গোপাধ্যায়ের নাম উচ্চারণ করতে শোনা গেল তাঁর মুখে।

 

Tags

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button
নিজের লেখা নিজে লিখুন
Close
Close