দেশশিক্ষা

ধর্মীয় শিক্ষা বন্ধ করার উদ্দেশ্যে রাজ্যের সমস্ত মাদ্রাসা তুলে দিচ্ছে আসাম সরকার

আসাম: ধর্মীয় শিক্ষা বন্ধ করার উদ্দেশ্যে পদক্ষেপ গ্রহণ করতে চলেছে অসম সরকার। গতকাল এক সাংবাদিক বৈঠকে অসমের শিক্ষা মন্ত্রী তথা উত্তর-পূর্ব ভারতে বিজেপির প্রধান নেতা হিমন্ত বিশ্ব শর্মা এই বিষয়ে বিস্তারিত জানান।

হিমন্ত বিশ্ব শর্মা সাংবাদিক বৈঠকে পরিষ্কার জানান “সরকারি অর্থে কোন ধর্মীয় শিক্ষা প্রদানের ব্যবস্থা চলতে পারে না। কোরআন পড়ানো হলে সে ক্ষেত্রে এবার বাইবেল, ভগবদ্গীতা পড়ানো ক্ষেত্রেও সরকারকে অর্থ খরচ করতে হয়।” এরপরই তিনি বলেন সরকার পোষিত মাদ্রাসা গুলির সঙ্গে সঙ্গে রাজ্যে থাকা সরকার পোষিত প্রায় ১০০ টি সংস্কৃত শিক্ষার টোল বন্ধ করে দেওয়া হবে। এই সংক্রান্ত বিষয়ে আগামী নভেম্বর মাসে শিক্ষা দপ্তর বিজ্ঞপ্তি জারি করবে।

সরকার পোষিত মাদ্রাসা বন্ধ করে দেয়ার ক্ষেত্রে পদক্ষেপ হিসেবে মাদ্রাসা গুলিকে সাধারণ বিদ্যালয়ে পরিবর্তিত করা হবে। অন্যথায় সেখানকার শিক্ষকদের অন্যান্য সরকারি বিদ্যালয়ে বদলি করা হবে এবং ওই মাদ্রাসা গুলিকে বন্ধ করে দেওয়া হবে।

অসম সহ সারা দেশে অবস্থিত মাদ্রাসাগুলিতে অংক, ইতিহাস, ভাষা শিক্ষার সঙ্গে সঙ্গে ইসলামের ধর্মীয় গ্রন্থ কোরান ও বিভিন্ন ইসলামিক আইন কানুন সম্বন্ধে শিক্ষাদান করা হয়। সরকার অর্থে কেন ধর্মীয় শিক্ষা দেওয়া হবে এ নিয়ে এদেশে বিতর্ক বহুদিনের। সেই বিতর্ক নিরসনের উদ্দেশ্যে অসম সরকার এক দৃঢ় পদক্ষেপ নিতে চলেছে বলে অনুমান করা হচ্ছে। শিক্ষা গবেষণা মূলক ওয়েবসাইট দ্যা রিসার্চের সমীক্ষা থেকে দেখা গিয়েছে যে এদেশের মুসলিম সম্প্রদায়ের ৪ শতাংশ শিক্ষার্থী সর্বদা মাদ্রাসা শিক্ষা ব্যবস্থা গ্রহণ করেন।

অসমে এই মুহূর্তে সরকার পোষিত মাদ্রাসার সংখ্যা ৬১৪ টি। তার মধ্যে ৪০০ টি হাই মাদ্রাসা, ১১২ টি জুনিয়ার হাই মাদ্রাসা ও ১০২ টি সিনিয়র মাদ্রাসা আছে। এর মধ্যে ৫৭ টি ছাত্রীদের জন্য, ৩ টি ছাত্র দের জন্য ও বাকি ৫৫৪ টি কো-এডুকেশন পদ্ধতিতে চলে। এই তথ্য পাওয়া গিয়েছে অসম রাজ্য মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ডের পক্ষ থেকে।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close
Close