দেশ

১৯ বছর ধরে ভুয়ো অভিযোগ, শিবের বিষপানের মতো সহ্য করেছেন মোদীজি: শাহ

মহানগর বার্তা ওয়েবডেস্কঃ গুজরাট দাঙ্গায় দেশের শীর্ষ আদালতের থেকে অবশেষে ক্লিনচিট পেয়েছেন প্রধানমন্ত্রী তথা তৎকালীন গুজরাটের মুখ্যমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। এবার সেই প্রসঙ্গ তুলে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে শিব ঠাকুরের সাথে তুলনা করলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ।

শনিবার এক সংবাদ মাধ্যমকে দেওয়া একটি সাক্ষাৎকারে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ বলেন,১৯ বছর ধরে ভুয়ো অপবাদ সহ্য করে ছিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। অবশেষে ন্যায় পেয়েছেন তিনি। “মোদীজি ১৯ বছর ধরে ভুয়ো অভিযোগ নীরবে সহ্য করে গিয়েছেন। ভগবান শঙ্করের বিষপানের মতো সব ভুয়ো অভিযোগ সহ্য করেছেন তিনি। মোদীরও জিজ্ঞাসাবাদ হয়েছিল। কেউ ধর্না প্রদর্শন করেনি। দেশজুড়ে প্রতিবাদ, বিক্ষোভ হয়নি। আমরা দেশের আইনকে সাহায্য করেছি।”

প্রসঙ্গত, পূরাণে কথিত আছে যে, সমুদ্র থেকে অমৃত মন্থনের সময়, যে বিষ উঠে এসেছিল, তা মহাদেব নিজের কণ্ঠে ধারণ করেন। সেই থেকেই তার নাম নীলকন্ঠ। এদিন অমিত শাহ এই ঘটনার সাথেই প্রধানমন্ত্রীর তুলনা করেন।

শাহ আরও জানিয়েছেন, “আমাকেও গ্রেফতার করা হয়েছিল। কিন্তু, বিক্ষোভ দেখাইনি। এত বড় লড়াইয়ের পর কেউ যখন অপরাধমুক্ত হয় তখন সোনার থেকেও বেশি চমক হয়। যারা মোদীজিকে দোষারোপ করেছিল, তাঁদের ক্ষমা চাওয়া উচিত।” তার মতে গণতন্ত্রে কী ভাবে সংবিধানের সম্মান করতে হয় তার একটি আদর্শ উদাহরণ রেখেছেন মোদী।

প্রসঙ্গত, প্রসঙ্গত, গুজরাট হিংসার ঘটনায় তৎকালীন গুজরাটের মুখ্যমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে ক্লিনচিট দিয়েছিল বিশেষ তদন্তকারী দল। ওই তদন্তকারী দলের দেওয়ার তথ্যের ভিত্তিতেই নরেন্দ্র মোদীকে ক্লিনচিটের রায় দেয় গুজরাট হাইকোর্ট।

সেই রায়কে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে সর্বোচ্চ আদালতে মামলা করেছিলেন জাকিয়া জাফরি। গত শুক্রবার তাঁর সেই মামলা খারিজ করে দেয় দেশের শীর্ষ আদালত। গুজরাটের হিংসায় বৃহত্তর ষড়যন্ত্রের অভিযোগ উঠেছিল। সেই ঘটনায় সরাসরি নাম জড়িয়েছিল নরেন্দ্র মোদীর। কিন্তু, তাঁকে ক্নিনচিট দিয়েছিল তদন্তকারী সিট দল। তারপর মামলা বন্ধের চূড়ান্ত রিপোর্ট গ্রহণ করেছিলেন ম্যাডিস্ট্রেট।

বিচারপতি এএম খানউইলকর, বিচারপতি দীনেশ মাহেশ্বরী এবং বিচারপতি সিটি রবি কুমারের ডিভিশন বেঞ্চ ২০২২ সালের ৮ ফেব্রুয়ারি নরেন্দ্র মোদীকে ক্লিনচিটের রায়কেই বহাল রাখে। অর্থাৎ গুজরাট হিংসার ঘটনায় নরেন্দ্র মোদী নির্দোষই, স্পষ্ট জানিয়ে দেয় আদালত। মামলার শুনানিতে সুপ্রিম কোর্টের তিন বিচারপতির ডিভিশন বেঞ্চ স্পষ্ট জানিয়ে দেয়, জাকিয়া জাফরির দায়ের করা মামলা ভিত্তিহীন।

Tags

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button
নিজের লেখা নিজে লিখুন
Close
Close