মহানগর

মানবিকতার নজির! মহিলার হারিয়ে যাওয়া ৮০ হাজার টাকার সোনার গহনা খুঁজে দিলেন CPIM কর্মী

অর্পন চক্রবর্তী: চারিদিকে যখন বিজ্ঞাপনী প্রচারের ঢক্কা নিনাদ বাড়ছে, মানুষ করছে দু আনা আর প্রচার করছে বারো আনার, সেই সময়ে দাঁড়িয়ে নীরবে সততার এক উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত স্থাপন করল নেতাজি নগর অঞ্চলের কয়েকজন সিপিআই(এম) পার্টি কর্মী। আর তাদের সেই সততার ফলে সর্বস্ব খুইয়ে অসুস্থ হয়ে পড়া এক গৃহবধূ আজ আবার হাসি মুখে দিনযাপনের পথ খুঁজে পেয়েছেন।

কয়েকদিন আগে দক্ষিণ কলকাতার নেতাজি নগর অঞ্চলের সিপিআই(এম) এর যুব কর্মী শুভদীপ সরকার একটি ব্যাগ পড়ে থাকতে দেখেন পার্টি অফিসের অদূরে। তিনি ব্যাগটি নিয়ে পার্টি অফিসের মধ্যে রেখে দেন। কেউই ব্যাগটি নিয়ে খুব একটা কৌতুহল প্রকাশ করেনি। সবাই মনে করেছিলেন যার ব্যাগ সে এসে নিয়ে যাবে। এরপর দিন দুয়েক কেটে গেলেও যখন দাবিহীন ব্যাগটি দাবিহীন থেকে যায়, তখন ওটা নিয়ে সন্দেহ দানা বাঁধে পার্টিকর্মীদের মধ্যে। তখন সেখানে উপস্থিত পার্টির সদস্য সোমনাথ ঝা ব্যাগটি খোলেন। সোমনাথ বাবুর কথায় তিনি যথেষ্ট সংকোচ নিয়ে ব্যাগটি খুলে দেখেন সেটি পি সি চন্দ্র জুয়েলার্সের গহনার ব্যাগ এবং তার মধ্যে একটি সোনা বাঁধানো নোয়া আছে। তার মূল্য প্রায় ৮০,০০০ টাকা। সেই সঙ্গে তার মধ্যে একটা বিল পান। যে বিলে ক্রেতার নাম লেখা ছিল শ্যামলী সেন। সেই সঙ্গে শ্যামলীদেবীর ফোন নাম্বারও তারা ওই বিল থেকে পান। তখন ফোন করে তারা যোগাযোগ করেন শ্যামলী দেবীর সঙ্গে। তার কিছুক্ষণ পরেই শ্যামলী দেবীর স্বামী এসে গহনার ব্যাগটি নিয়ে যান।

সিপিআই(এম) সদস্য ও এই ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী সোমনাথের থেকেই জানা গেল গহনার মূল্য ছিল প্রায় আশি হাজার টাকা। তিনি যখন শ্যামলীদেবীকে ফোন করেন, তখন আবেগে কেঁদে ফেলেছেন ওই ভদ্রমহিলা। তিনি তার জীবনের সঞ্চয় দিয়ে অনেক কষ্ট করে গড়ানো গয়না অসাবধানবশত রাস্তায় হারিয়ে ফেলেছিল বলে জানান। সর্বস্ব হারানোর যন্ত্রণা নিয়ে এরপরই অসুস্থ হয়ে বিছানা নেন শ্যামলীদেবী। তার স্বামী এসে ব্যাগটি নিয়ে যাওয়ার সময় খুশি হয়ে মিষ্টি খাওয়ার জন্য উপস্থিত পার্টির কর্মীদের হাজার টাকা দিতে চেয়েছিলেন।কৃতজ্ঞতা স্বরূপ তার দেওয়া ওই টাকা নেওয়ার জন্য তিনি যথেষ্ট পীড়াপীড়ি করলেও, সোমনাথ শুভদীপ’রা বিনম্রভাবে ওই টাকা নিতে অস্বীকার করেন। তারা জানান সিপিআই(এম) কর্মী হিসেবে এটাই তাদের কর্তব্য। তাই মিষ্টি খাওয়ার জন্য কোন অর্থ তারা গ্রহণ করতে পারবেন না।

৯ তারিখ সন্ধ্যাবেলায় এই ঘটনাটি ঘটে। এরপর ১০ অক্টোবর সিপিআই(এম) রাজ্য সম্পাদক সূর্যকান্ত মিশ্র এই ঘটনাটি তার সোশ্যাল মিডিয়ায় পেজ থেকে পোস্ট করলে নেটিজেনদের মধ্যে যথেষ্ট চাঞ্চল্য পড়ে যায়। সবাই ওই সিপিআই(এম) কর্মীদের সততাকে বাহবা দিয়েছেন।

 

Tags

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close
Close