আন্তর্জাতিকখেলাদেশ

বয়স মাত্র ১৪! র‍্যাকেট হাতে বিশ্ব কাঁপাতে চলেছে বাঙালি মেয়ে ঐশী

মহানগর বার্তা ওয়েবডেস্ক: আন্তর্জাতিক ক্রীড়ায় বাঙালীর স্বপ্নের উড়ান। এবার উইম্বিলডন জুনিয়র এ খেলতে নামছেন ভারতীয় বংশোদ্ভূত বাঙালী কন্যা, ঐশী দাস। বছর ১৪ এর ঐশী আসন্ন জুনিয়র উইম্বল্ডনে নামতে চলেছেন। ঐশীর জন্ম, নিউজিল্যান্ডের অকল্যান্ডে। বাংলা ভাষা এখনও দক্ষতা আসেনি। তবে তার বাবা-মার শরীরে বইছে বাঙালির রক্ত। বাবা বিজন দাসের জন্ম পঞ্জাবে। মা অর্পিতা দাস জামশেদপুরে বেড়ে উঠেছেন। সেই সুত্রে ঐশীর পরিবারে রয়েছে বাঙালিয়ানার ছোঁয়া।

মাত্র ছয় বছর বয়সেই মাঠে নেমেছিলেন এই র‍্যাকেট কন্যা। নিজের দেশ ও অস্ট্রেলিয়াতে গিয়ে একাধিক শিশু প্রতিযোগিতা খেলার পরেই টেনিস নিউজিল্যান্ডের শীর্ষ কর্তাদের নজর কাড়েন দশম শ্রেণির ওই ছাত্রী। ২০২১ এ ক্যালোডেরিয়াতে চ্যাম্পিয়ন হওয়ার পরেই চলে আসে জুনিয়র উইম্বল্ডনে নামার সুযোগ।তবে তিনি প্রথম নন। আমেরিকা নিবাসী বঙ্গ তনয় সমীর বন্দ্যোপাধ্যায় ছিলেন গত বছরের জুনিয়র উইম্বল্ডন জয়ী। এ বার দ্বিতীয় বাঙালি ও প্রথম বঙ্গ তনয়া হিসেবে এই গ্রান্ডস্ল্যাম খেলতে নামছেন অকল্যান্ডের গর্ব। প্রথম বার জুনিয়র উইম্বল্ডন খেলতে নামার অনুভূতি কেমন ছিল সেই প্রসঙ্গে তিনি বলেন,
“এই মুহূর্তের জন্য এত বছর ধরে পরিশ্রম করছিলাম। উইম্বল্ডন একেবারে প্রথমসারির প্রতিযোগিতা। অনেক ইতিহাস জড়িয়ে আছে উইম্বল্ডনকে ঘিরে। সেখানে আমি খেলতে নামব, ভাবলেই দারুণ অনুভূতি দিচ্ছে। এখন শুধু ইংল্যান্ডে উড়ে গিয়ে উইম্বল্ডন খেলার অপেক্ষায় রয়েছি। এবং আমি নিজেকে উজাড় করে দিয়ে এই প্রতিযোগিতা জিততে চাই।”

বাবা বিজন দাস একটা সময় পঞ্জাব বিশ্ববিদ্যালয়ের হয়ে ক্রিকেট খেলতেন। কিন্তু কীভাবে শুরু হল টেনিসের পাঠ? বিজন জানিয়েছেন, “ওর যখন ছয় বছর বয়স ছিল, তখন থেকে টেনিস পাঠ নিচ্ছে। আমি একদিন মেয়ের সঙ্গে খেলা শুরু করে দিয়েছিলাম। সেখান থেকে শুধু নিজের চেষ্টায় এতদূর এসেছে। জুনিয়র উইম্বল্ডনে খেলতে নামার আগে নিউজিল্যান্ড ও অস্ট্রেলিয়াতে ঐশী একাধিক প্রতিযোগিতা জিতেছে। এরমধ্যে ছিল গত বছর ক্যালোডেরিয়াতে চ্যাম্পিয়ন হওয়ার জন্য জুনিয়র উইম্বল্ডনে খেলার সুযোগ চলে এল। তবে এখানেই থামলে চলবে না। কারণ ওর যাত্রা সবে শুরু হল।”

সূত্রের খবর, চলতি বছরের ২ জুলাই থেকে শুরু হবে জুনিয়র উইম্বল্ডন। ব্যক্তিগত ফিটনেস ট্রেনারকে নিয়েই ইংল্যান্ডে উড়ে যাবেন এই বছর ১৪ এর বঙ্গ তনয়া। শুরু হবে তাঁর নতুন লড়াই। আইডল রজার ফেডেরারকে সামনে রেখেই এগিয়ে যেতে চান ঐশী।

ঐশী আরও জানিয়েছেন, “টেনিস জগতে অনেক তারকা আছেন। তবে আমার প্রথম ও শেষ পছন্দ রজার ফেডেরার। কারণ উনি শুধু একজন লেজেন্ড নন। উনি দারুণ মনের মানুষ। আর সেটাই আমাকে আরও মুগ্ধ করেছে। ওঁর দেখেই ভবিষ্যতে এগিয়ে যেতে চাই।”যদিও, কেরিয়ারের প্রথম গ্রান্ডস্ল্যামে নামলেও, বাবা-মাকে কাছে পাবেন না ঐশী। সেটা নিয়ে ওঁর তাদের আক্ষেপ আছে। যদিও সেটা ঐশীর সামনে প্রকাশ করতে চান না মা অর্পিতা। বরং মেয়ের আত্মবিশ্বাস ও প্যাশনকে গুরুত্ব দিতে চান তারা।

তার মা এর কথায়, “আসলে খেলায় সাফল্য পেতে গেলে শুধু ভাল খেললেই চলবে না। খেলাকে প্রতি মুহূর্তে এনজয় করতে হবে। সেটাই ওকে শিখিয়েছি। ঈশ্বরের কাছে একটাই প্রার্থনা ঐশী যেন এ বার নিজের যোগ্যতা অনুসারে খেলতে পারে। সেটাই আমার কাছে যথেষ্ট।”অপেক্ষার প্রহর গুনছেন ঐশীও। জুনিয়র উইম্বল্ডনে অভিষেক ঘটিয়েই ট্রফি হাতে তুলতে চান। যেমনটা গত বছর প্রথমবার কোর্টে তাক লাগিয়ে দিয়েছিলেন আর এক বঙ্গ সন্তান সমীর।

Tags

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button
নিজের লেখা নিজে লিখুন
Close
Close