আন্তর্জাতিক

ছি! মৃত্যুর পর মর্গের মৃত নারীদের ধর্ষণ, গ্রেফতার যুবক

মহানগরবার্তা ওয়েবডেস্ক: সৃজিত মুখার্জী পরিচালিত ‘নির্বাক’ ছবিতে যে ঘটনা দেখে ঘৃণায় শিউরে উঠেছিল প্রেক্ষাগৃহের দর্শক, এবার রূপোলী পর্দার সেই ঘটনাই উঠে এল বাস্তবের মাটিতেও। পুরুষের বিকৃত কাম যে কোন পর্যায়ে পৌঁছোতে পারে আরো একবার তার নিদর্শন পাওয়া গেল। জীবিত নয়, যৌন লালসার হাত থেকে রেহাই পেল না মর্গে রাখা মৃত নারীদেহও। এবার দীর্ঘদিন ধরে মর্গের মৃতদেহ ধর্ষণ করে আসার সাংঘাতিক অভিযোগ উঠল বাংলাদেশের এক যুবকের বিরুদ্ধে।

বাংলাদেশের সংবাদমাধ্যম সূত্রে জানা গেছে, অভিযুক্ত যুবকের নাম মুন্না ভগত। বছর কুড়ির এই যুবক গত দুই-তিন বছর ধরে মুন্না মর্গে থাকা মৃত নারীদের ধর্ষণ করে আসছিল। তার বিরুদ্ধে উপযুক্ত প্রমাণ পেয়ে সিআইডির কর্মকর্তারা তাকে আটক করেছে বলে জানা গেছে।

সূত্রের খবর, অভিযুক্ত মুন্না ভগত ঢাকার সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালের মর্গে ডোমের সহকারী হিসেবে কাজ করে। অভিযোগ ওঠার পর সিআইডি এই ঘটনার তদন্তে নামে। জানা গেছে, মৃত তরুণীদের ডিএনএ টেস্ট করার পরই চাঞ্চল্যকর তথ্য উঠে আসে। মর্গে থাকা একাধিক তরুণীর মৃতদেহ থেকে পাওয়া যায় একই ব্যক্তির শুক্রাণু। এখনও পর্যন্ত অন্তত সাতজনের মৃতদেহ থেকে এই শুক্রাণু পাওয়া গেছে বলে বাংলাদেশ সূত্রের খবর। পৈশাচিক এই ঘটনার চরম নিন্দায় সরব হয়েছেন ওপার বাংলার মানুষ।

বাংলাদেশের সিআইডির অর্গানাইজড ক্রাইম বিভাগের প্রধান অতিরিক্ত ডিআইজি শেখ মো. রেজাউল হায়দার বলেন, বিভিন্ন স্থান থেকে যেসব লাশ ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে নেওয়া হতো, সেসব লাশের মধ্য থেকে মৃত নারীদের ধর্ষণ করতো মুন্না।জঘন্যতম ও খুবই বিব্রতকর অভিযোগ। অভিযোগের প্রাথমিক সত্যতার পরই ওই যুবককে আটক করেছে সিআইডি।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, ২০১৫ সালে মুক্তি পায় বাংলা চলচ্চিত্র জগতের অন্যতম জনপ্রিয় পরিচালক সৃজিত মুখার্জীর ‘নির্বাক’ ছবি। এই ছবিতে একাধিক ঘটনা প্রবাহের মধ্যে একটিতে পুরুষের বিকৃত যৌনতার দৃষ্টান্ত তুলে ধরা হয়। সেখানে দেখানো হয়েছিল মর্গের এক কর্মী মৃত নারীদেহ গুলিকে পরিবারের হাতে তুলে দেওয়ার আগে ধর্ষণ করত। রূপোলী পর্দার সেই জঘন্য ঘটনা যে বাস্তবেও সামনে আসবে তা ভাবতে পারেনি কেউই।

Tags

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close
Close