রাজ্যখবর

ভর্তির সময় শেষ,রাজ্যের কলেজ গুলির অর্ধেক আসনই শূন্য

মহানগর বার্তা ডেস্ক : কলেজে স্নাতকস্তরে ভর্তির জন্য আবেদনের শেষ দিন অতিক্রান্ত।নতুন করে ওই সময়সীমা বৃদ্ধির কোনও নির্দেশিকাও জারি হয়নি।এই অবস্থায় রাজ্যের মোট ৪৬৮টি কলেজে স্নাতকস্তরের প্রায় অর্ধেক আসনই খালি পড়ে রয়েছে।কলেজগুলিতে সব মিলিয়ে ৪৭ শতাংশ আসন ফাঁকা রয়েছে এখনও।

দেড়শোর বেশি কলেজে শূন্য পড়ে থাকা আসনের হার ৫০ শতাংশ ছাড়িয়ে গিয়েছে। বিষয়টি যে যথেষ্ট উদ্বেগের, তা নিয়ে কোনও সন্দেহ নেই শিক্ষামহলের। বিগত বছরগুলিতে একাধিকবার ভর্তির সময়সীমা বাড়ানো হলেও এবার সেরকম কোনও আভাস পাওয়া যায়নি এখনও পর্যন্ত। তাহলে কি অর্ধেক আসন খালি রেখেই শুরু হতে চলেছে স্নাতকস্তরের পঠনপাঠন? নাকি উচ্চশিক্ষায় ক্রমশই আগ্রহ হারাচ্ছে এ রাজ্যের তরুণ প্রজন্ম? এরকম নানা প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে।

উচ্চ মাধ্যমিকে প্রাপ্ত নম্বরের ভিত্তিতে মেধা তালিকা প্রকাশ করে এখন কলেজগুলিতে ভর্তি প্রক্রিয়া চলছে। উচ্চশিক্ষা দপ্তরের কাছে দৈনিক যে রিপোর্ট জমা পড়ে, তা থেকে দেখা যাচ্ছে, প্রায় সব কলেজেই বহু আসন খালি রয়েছে। কোচবিহার ও দার্জিলিংয়ের একটি করে কলেজে প্রায় ৯০ শতাংশ আসনে কেউ ভর্তি হননি। আলিপুরদুয়ারের দু’টি কলেজে অন্তত ৭৫ শতাংশ আসন খালি।হুগলির পোলবার একটি কলেজে ফাঁকা পড়ে রয়েছে প্রায় ৮৬ শতাংশ আসন।

জেলার পাশাপাশি কলকাতার চিত্রও উদ্বেগজনক। যেমন, উত্তর কলকাতার একটি কলেজে প্রায় ৮১ শতাংশ আসন খালি রয়েছে এখনও। তবে গোটা রাজ্যের তুলনায় কলকাতার কলেজগুলিতে শূন্য পড়ে থাকা আসনের হার সবচেয়ে কম। তাৎপর্যপূর্ণ বিষয় হল, বেশ কিছু নামকরা কলেজেও ভর্তির হার একেবারেই ভালো নয়। একটা সময় এই কলেজগুলিতে ভর্তির সুযোগ পেতে হাপিত্যেশ করে বসে থাকতেন মেধাবী ছাত্রছাত্রীরা। সেই জায়গায় আশুতোষ কলেজ, সেন্ট জেভিয়ার্স কলেজেও এবার বহু আসন পূরণ হয়নি। তবে কলকাতার গোয়েঙ্কা কলেজ অব কমার্স অ্যান্ড বিজনেস অ্যাডমিনিস্ট্রেশনে ৯৪ শতাংশ আসন পূর্ণ। ভর্তির নিরিখে এই কলেজ রাজ্যের মধ্যে সব থেকে ভালো অবস্থায় রয়েছে। ৯০ শতাংশ বা তার বেশি আসন পূরণ হয়েছে, এমন কলেজের সংখ্যা হাতে গোনা। কলকাতার দু’টি, পুরুলিয়া ও পশ্চিম মেদিনীপুরের একটি করে কলেজ রয়েছে তালিকায়।

কলকাতা, মাদলহ, পশ্চিম মেদিনীপুর, পুরুলিয়া, নদীয়ায় বেশ কিছু কলেজে পড়ুয়া ভর্তির হার মোটের উপর সন্তোষজনক। ঝাড়গ্রামে খালি পড়ে থাকা আসনের সংখ্যা সবচেয়ে বেশি।

 

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button
নিজের লেখা নিজে লিখুন
Close
Close