রাজ্যরাজনীতি

বক্তব্যে পুলিশকে কুকুরের সাথে তুলনা! তারপর কুকুরের কাছে ক্ষমা চাইলেন সেলিম

মহানগর বার্তা ওয়েবডেস্কঃ পুলিশকে ঘিরে জোড়া বিতর্কিত মন্তব্যে জল্পনা বাড়ালেন সিপিএমের রাজ্য সম্পাদক মহম্মদ সেলিম। কাল অর্থাৎ শনিবার সিপিএম কর্মী খুনের প্রতিবাদ সভায় হাজির ছিলেন তিনি। সেখানে সভার মঞ্চ থেকে প্রকাশ্য বক্তব্যে বলেন, ‘পুলিশকে কেন মাইনে দিয়ে রাখা হয়েছে? কুকুর পুষলেই তো হয়, কয়েকটা কুকুর পুষলেই হয়, শুঁকে শুঁকে বলে দিতে পারে।’ সোজাকথায় পুলিশকে কাঠগড়ায় তুলে রাজ্য সরকারকে তুলোধনা করেন তিনি। গত চব্বিশ ঘন্টায় তাঁর এই বিতর্কিত মন্তব্য ঘিরে তুমুল আলোচনা হয় গণমাধ্যমে। তাঁর পরিপ্রেক্ষিতে ফের আজ মুখ খোলেন মহম্মদ সেলিম। রবিবার অর্থাৎ আজ বীরভূমের রামপুরহাটে দলীয় কর্মসূচিতে তাঁকে বলতে শোনা যায়, ‘‘পুলিশের সঙ্গে তুলনা করে কুকুরের অপমান করেছি।”

এই মন্তব্যের পর তাঁর বিরুদ্ধে কড়া সমালোচনা শুরু হয় তৃণমূল শিবিরে। সেলিমের মন্তব্য নিয়ে তৃণমূলের রাজ্যের সাধারণ সম্পাদক কুণাল ঘোষের পাল্টা তোপ, ‘‘যাঁরা নেতাজি সুভাষ চন্দ্র বসুকে ‘তোজোর কুকুর’ বলতেন, তাঁদের এই সংস্কৃতি হবেই। এটা ওঁদের জেনেটিক সমস্যা। ওঁদের জমানায় পুলিশকে দলদাসে পরিণত করেছেন। সেলিম যা করলেন, তাতে আমাদের উচিত দলমত নির্বিশেষে এই সংস্কৃতির তীব্র নিন্দা করা। কারণ আমাদের ঘরের ছেলেরা পুলিশে চাকরি করেন। মহম্মদ সেলিম ভুলে গেলেন, তাঁরা কী ভাবে পুলিশকে কাজে লাগিয়েছেন?’’

আনিসের খুন থেকে বগটুই কান্ড, হাঁসখালি কিংবা বোলপুরের ধর্ষণের ঘটনায় দোষীদের শাস্তির দাবিতে এবং প্রশাসনের নিষ্ক্রিয় ভূমিকার প্রতিবাদে আজ বীরভূমের রামপুরহাটে মিছিল করেন বামেরা। সেই মিছিল শেষে জনসভায় বক্তব্য রাখেন মহম্মদ সেলিম। বক্তব্যে রাজ্য সরকার ও পুলিশের বিরদ্ধে একের পর এক ক্ষোভ উগড়ে দিতে শোনা যায় তাঁকে। সেলিম বলেন, “তৃণমূলের লোকজন কেউ কেউ বলছেন, ‘ইসস! পুলিশকে আপনি কুকুরের সঙ্গে তুলনা করলেন?’ আমি সাধারণত উল্টোপাল্টা বলি না। কিছু বলে দিলেও আমার খারাপ লাগে। আমি দুঃখপ্রকাশ করি। আমি আজকে দুঃখপ্রকাশ করছি, পুলিশের সঙ্গে তুলনা করে আমি কুকুরের অপমান করেছি। এতে পুলিশের সম্মান নয়, কুকুরের সম্মান গিয়েছে। কারণ কুকুরকে প্রশিক্ষণ দিলে, বিশ্বাস করলে ও ঠিক খুনিকে গিয়ে ধরবে। কিন্তু ওই বগটুই গ্রামে স্বয়ং মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় গিয়ে পুলিশ সুপারকে বলছেন, ‘এই কেসটা সাজাতে হবে।’ অনুব্রত মণ্ডলও বলছেন, ‘ওই রকমই কেসটা সাজাতে হবে।’ কোনও কুকুর কি জিজ্ঞাসা করবে? কোনও কুকুর ওই কথা শুনবে?’’

চাঁচাছোলা বক্তব্য এবং যুক্তিবাদী তাত্ত্বিক নেতা হিসেবে পরিচিতি রয়েছে সেলিমের। অতীতে তাঁর বিজেপির বিরুদ্ধে বহু বক্তব্য সমর্থন করতে দেখা গেছে তৃণমূল নেতাদের। কিন্তু এবাদ তাঁর পুলিশকে ঘিরে এমন বক্তব্যের নিন্দা করতে ছাড়েনি তৃণমূল।

Tags

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button
নিজের লেখা নিজে লিখুন
Close
Close