আন্তর্জাতিক

জন্মান্তরের বন্ধন? ঘড়ির কাঁটা ধরে একসঙ্গে চোখ বুজলেন করোনা আক্রান্ত প্রৌঢ় দম্পতি

মহানগরবার্তা ওয়েবডেস্ক: প্রায় বছর খানেক আগে চিনের উহান প্রদেশে প্রথম দেখা মিলেছিল করোনা ভাইরাসের। তার পর থেকে আজ পর্যন্ত গোটা বিশ্বে প্রায় ১১ লক্ষ মানুষের প্রাণ নিয়েছে এই মারণ ভাইরাস। গুঁড়িয়ে দিয়েছে মানুষের দৈনন্দিন জীবনের চেনা ছন্দ। মারণ এই ভাইরাসের থাবা সবচেয়ে বেশি প্রাণ নিয়েছে বয়স্কদের।

করোনা ভাইরাসে সবচেয়ে বেশি জীবনের ঝুঁকি বয়স্ক মানুষদের, প্রথম থেকেই এমন দাবি করে আসছিলেন বিশ্বের নানা প্রান্তের চিকিৎসকরা। প্রাণও গেছে বহু প্রবীণ-প্রবীণার। সম্প্রতি ফের সামনে এসেছে তেমনই এক ঘটনা। আমেরিকার বয়স্ক এই দম্পতির শেষ বিদায়ের বর্ণনা শুনলে হয়তো চোখের কোণ চিকচিক করে উঠবে আপনারও।

প্রায় ৫০ বছরের বিবাহিত জীবন কাটিয়েছেন আমেরিকার মিশিগান শহরের প্যাট্রিসিয়া ম্যাকওয়াটার আর তাঁর স্বামী লেসলি। দুজনেরই বয়স ৮০-র কাছাকাছি। গত ২৪ নভেম্বর তাঁরা আমেরিকার একটি নার্সিংহোমে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেছেন। দুজনেই করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ নিয়ে ভর্তি হয়েছিলেন নার্সিং হোমে।

এখানেই শেষ নয়, এই মৃত্যুতে চমক লাগে অন্য জায়গায়। প্রায় ৫০ বছর ধরে সমস্ত কিছুতে একে অপরের পাশে থেকেছেন তাঁরা। মৃত্যুও তাই তাঁদের আলাদা করতে পারে নি। ঘড়ির কাটা মিলিয়ে এক্কেবারে একই সময়ে জীবন থেমেছে দুজনের! একই সাথে পরপারে যাত্রা করেছেন লেসলি আর প্যাট্রিসিয়া।

সূত্রের খবর অনুযায়ী ১৯৭৩ সালে একসাথে পথ চলা শুরু করেছিলেন আমেরিকার এই দম্পতি। তারপর থেকে জীবনের প্রতিটা মুহূর্তই প্রায় একসঙ্গে কাটিয়েছেন, পাশে থেকেছেন একে অপরের। একই সঙ্গে দুজনেই করোনা আক্রান্ত হয়েছিলেন। চিকিৎসকরা জানিয়েছিলেন তাঁদের শেষ সময় উপস্থিত। নার্সিং হোমের রেকর্ড বলছে কাটায় কাটায় মিলে গেছে ওই দম্পতির মৃত্যুর সময়। মঙ্গলবার বিকেল ৪টে ২৩ মিনিট!

এ ব্যাপারে তাঁদের মেয়ে জোন্না সিস্কের কথায়, “এটা একটা অপূর্ব সুন্দর ঘটনা। ঠিক যেন রোমিও জুলিয়েটের মতো। ওঁরা কখনোই একজন আরেকজনকে ছাড়া থাকতে চাইতেন না।”

Tags

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close
Close