রাজ্যরাজনীতি

চিট ফান্ডের টাকায় বেইমান কেনা যায়, সাচ্চা ইনসান নয়: মহম্মদ সেলিম

মহানগরবার্তা ওয়েবডেস্ক: আসন্ন বিধানসভা নির্বাচনকে কেন্দ্র করে রাজ্য জুড়ে যে প্রস্তুতি শুরু হয়েছে, তাতে ক্রমশই উত্তপ্ত হয়ে চলেছে প্রাক নির্বাচনী আবহাওয়া। বিহারের নির্বাচনের পালা মিটতেই কার্যত ভোটের দামামা বেজে গেছে বাংলায়। দিন যত এগিয়ে আসছে ততই রাজনৈতিক দল গুলির মধ্যে বাক বিতণ্ডাও বেড়ে চলেছে। রাজ্য থেকে বিজেপি তৃণমূলকে উৎখাত করতে আসরে নেমেছেন বাম নেতারা।

তৃণমূল কিংবা বিজেপি, দুই দলই রাজ্যের পক্ষে ক্ষতিকর, এবার এমনটাই দাবি করলেন সিপিআই এম নেতা মহম্মদ সেলিম। বৃহস্পতিবার একটি প্রাক নির্বাচনী জনসভায় যোগ দিয়ে তিনি বলেন, তৃণমূলের বিরুদ্ধে বিজেপি নয়, বিজেপির বিরুদ্ধে তৃণমূল নয়, আদতে এই দুই দলই পরস্পরকে সাহায্য করছে গোপনে। সেই সঙ্গে আগামী ২৬ নভেম্বরের ধর্মঘট সফল করার আহ্বানও জানিয়েছেন বর্ষীয়ান সিপিআই এম নেতা মহম্মদ সেলিম।

বৃহস্পতিবার দক্ষিণ ২৪ পরগণার ঢোলাহাট ও বিজয়গঞ্জ বাজারে পর পর দুটি জনসভায় যোগ দিয়েছিলেন পলিটব্যুরো সদস্য মহম্মদ সেলিম। এদিনের জনসভায় তাঁর মূল বার্তা ছিল রাজ্য তৃণমূলের বিকল্প কখনোই বিজেপি নয়, বরং বাম কংগ্রেস জোটকেই একমাত্র বিকল্প বলে মন্তব্য করেন তিনি। তাঁর কথায়, তৃণমূলের সিঁড়ি দিয়েই এ রাজ্যে বিজেপি এসেছে, তৃণমূল এ রাজ্যে গণতন্ত্রকে শেষ করেছে আর বিজেপি গোটা দেশে তা শেষ করেছে।

তৃণমূল নেত্রী মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় যে বাংলা থেকে সিপিএমকে সরানোর জন্য আরএসএস-এর সাহায্য নিয়েছিলেন এদিনের জনসভায় সে কথাও জানান মহম্মদ সেলিম। তিনি বলেন, আরএসএস-এর টাকায় মমতা বাজপেয়ী আডবাণীর পাঠশালায় নাম লিখিয়েছিলেন। চিট ফান্ড কেলেঙ্কারি নিয়েও এদিন শাসকদলকে এক হাত নিয়েছেন সিপিআই এম নেতা। তিনি বলেন, ভোটের আগেই বিজেপি সিবিআইকে বের করে। চোর ডাকাতরাই নবান্ন আর পার্লামেন্টে বসছে, লাল ঝান্ডার আমলে কারোর এসব করার সাহস ছিল না বলেন তিনি।

এরপরই ভোটের আগে দল বদল প্রসঙ্গে মুখ খোলেন বাম নেতা। বলেন, “সবাই বিক্রি হয় না। চিট ফান্ডের টাকায় কয়েকটা বেইমান কেনা যায়, সাচ্চা ইনসান কেনা যায় না।” উল্লেখ্য, একুশের নির্বাচনের আগে এবার তৃণমূল এবং বিজেপির বিরুদ্ধে লড়তে কংগ্রেসের সঙ্গে জোট বেঁধেছে বাম শিবির। এভাবেই নানা প্রসঙ্গের উল্লেখ করে এদিনের জনসভায় দুই দলের সমালোচনা করেন মহম্মদ সেলিম।

Tags

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close
Close