রাজনীতিদেশ

“যোগীর শাসনে উত্তরপ্রদেশে দলিত মহিলারা নিরাপদ নয়”, ক্ষোভ প্রকাশ মায়াবতীর

মহানগর বার্তা ওয়েবডেস্কঃ গণধর্ষণকাণ্ডে বিরোধীদের একের পর এক আক্রমণের মুখে উত্তরপ্রদেশের যোগী সরকার। হাথরস থেকে বলরামপুর, একের পর এক গণধর্ষণ ও খুনের ঘটনায় যোগী আদিত্যনাথ সরকারের বিরুদ্ধে তীক্ষ্ণ আক্রমণ শানালেন উত্তরপ্রদেশের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী তথা বিএসপি নেত্রী মায়াবতী। উত্তরপ্রদেশের আইনশৃঙ্খলা ব্যবস্থা সম্পূর্ণ ভেঙে পড়েছে এবং এর যাবতীয় দায় মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথের বলে তোপ দেগেছেন মায়াবতী। বিএসপি নেত্রীর কথায় “যোগীর শাসনে উত্তরপ্রদেশের বোনেরা নিরাপদ নয়, বিশেষত দলিত মহিলারা।”

হাথরসের দলিত পরিবারের নির্যাতিতা তরুণীর মৃত্যুর পরে আবার গত কাল রাত্রিতে উত্তরপ্রদেশের বলরামপুরে পুনরায় এরকমই একটি গণধর্ষণ ও খুনের ঘটনা ঘটে। আর এই ঘটনার পরই সরাসরি প্রশ্নের মুখে পড়ে গিয়েছে উত্তর প্রদেশের পুলিশ প্রশাসনের ভূমিকা। মায়াবতী শুধু পুলিশ-প্রশাসনকেই নয়, সরাসরি মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথকে দায়ী করেছেন। এক সংবাদসংস্থাকে সাক্ষাত্কার দিতে গিয়ে মায়াবতী বলেন “হাথরসের ঘটনার পর ভেবেছিলাম দুষ্কৃতী ধর্ষণকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেবে উত্তরপ্রদেশ পুলিশ। কিন্তু আবার এক দলিত ছাত্রীকে নির্যাতিত ও খুন হতে হলো। রাজ্যে বিজেপির শাসনে অপরাধী, খুনি, মাফিয়া, ধর্ষকরা প্রকাশ্যে ঘুরে বেড়াচ্ছে। পুলিশ কোনো ব্যবস্থা নিচ্ছে না।”

মায়াবতী আরও বলেন “উত্তরপ্রদেশে মা-বোনেরা নিরাপদ নয়। বিশেষত দলিত সম্প্রদায়ের তরুণী যুবতীদের কোনো নিরাপত্তা নেই।”এই ঘটনার জন্য মায়াবতী সরাসরি যোগী আদিত্যনাথকে দায়ী করে বলেন “কেন্দ্রকে বলতে চাই উত্তরপ্রদেশ সরকারের ঘুম ভাঙছে না। যোগী আদিত্যনাথ রাজ্যের আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করতে পারছেন না। হয়তো আরএসএস-এর কারণে ওনাকে মুখ্যমন্ত্রী করা হয়েছে, কিন্তু উনি সরকার চালাতে অক্ষম। ওনাকে গোরক্ষপুরের মঠে পাঠিয়ে হয় অন্য কাউকে মুখ্যমন্ত্রী করা হোক, নাহলে রাজ্যে রাষ্ট্রপতি শাসন জারি করা হোক।” হাথরসের নির্যাতিতা তরুণীর মৃতদেহ পরিবারের হাতে না দিয়ে রাত্রির অন্ধকারে পুড়িয়ে দেয়ার ঘটনা নিয়েও তোপ দেগেছেন বিএসপি নেত্রী।

Tags

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close
Close