দেশহেলথ

অবস্থা সঙ্কটজনক ভারতরত্নের, বাবার জন্য প্রার্থনা মেয়ের

মহানগর বার্তা ওয়েবডেস্ক: করোনার আক্রমণ দিন দিন বেড়েই চলেছে।এবার কোরোনা সংক্রামিত হলেন প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখোপাধ্যায়। ৮৪ বছরের প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি র অবস্থার অবনতি হচ্ছে ধীরে ধীরে। ভেন্টিলেটরে দেওয়া হয়েছে তাকে। তাঁর শারীরিক অবস্থা এখন সংকটজনক। হাসপাতাল থেকে তার শারীরিক অবস্থার উন্নতির কোনও খবর এখনও পাওয়া যায়নি। এই পরিস্থিতিতে বাবার জন্য সবচেয়ে সর্বোত্তম চিকিৎসার প্রার্থনা জানালেন প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি কন্যা শর্মিষ্ঠা বন্দ্যোপাধ্যায়।

বুধবার সকালে ট্যুইটে শর্মিষ্ঠার মন্তব্য, ‘গত বছর ৮ অগস্ট আমার জন্য অন্যতম একটা আনন্দের দিন ছিল, কারণ সে দিন আমার বাবা ভারতরত্ন সম্মান পেয়েছিলেন। ঠিক তার এক বছর পর ১০ অগস্ট তিনি সংকটজনক অবস্থায় রয়েছেন। তাঁর জন্য যেটা সবচেয়ে ভালো হয়, তাই যেন করেন ঈশ্বর। মন স্থির রেখে জীবনের আনন্দ ও দুঃখ দুটোই যেন মেনে নিতে পারি, সেই শক্তি দিতে বলছি ঈশ্বরকে। সবাই খোঁজখবর নেওয়ায় ধন্যবাদ জানাই’।

ধীরে ধীরে প্রণব মুখোপাধ্যায়ের শারীরিক অবস্থার অবনতি ঘটে চলেছে। মঙ্গলবার সন্ধ্যায় দিল্লির আর্মি হসপিটাল রিসার্চ অ্যান্ড রেফারেল এক বিবৃতি দিয়ে ৮৪ বছরের প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি র শারীরিক অবনতির ও সংকটজনক অবস্থার কথা জানায়। বিবৃতিতে হসপিটাল কতৃপক্ষ জানায় এখন প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখোপাধ্যায়ের অবস্থা খুবই সঙ্কটজনক। মস্তিষ্কে রক্ত জমাট বেঁধে যাওয়ায় সোমবার অস্ত্রোপচার করা হয়েছে প্রাক্তন রাষ্ট্রপতির। কিন্তু এতকিছুর পরেও তার শারীরিক অবস্থার কোনো উন্নতির লক্ষণ দেখতে পায়নি চিকিৎসকেরা। এজন্য ভেন্টিলেশন সাপোর্টে রাখা হয়েছে তাকে।

হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ থেকে জানা গেছে রবিবার রাতে নিজের বাড়ির বাথরুমে পড়ে গিয়ে কপালে ও রগে আঘাত পান প্রণব মুখোপাধ্যায়। পরদিন সকাল থেকে তার স্নায়ুঘটিত সমস্যা দেখা দিলে ,তাকে হসপিটালে ভর্তি করা হয় এবং বা হাতের আঙ্গুল নাড়াতে পারছিলেন না তিনি। সিটি স্ক্যান ও এম আর আই করলে দেখা যায় চোট লাগার ফলে মাথায় রক্ত জমাট বেঁধে গেছে। তাই চিকিৎসকেরা যত দ্রুত সম্ভব অস্ত্রপ্রচারের সিদ্ধান্ত নেয়। কিন্তু অস্ত্রপ্রচারের আগে তার দেহে বিভিন্ন পরীক্ষা করে দেখা যায়, এসবের পাশাপশি প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি র শারীরিক অবনতির অন্যতম কারণ হলো করোনা। মঙ্গলবার সকালে প্রণব মুখোপাধ্যায়ের পুত্র অভিজিত মুখোপাধ্যায় জানান, ৯৬ ঘণ্টা না-কাটলে চিকিৎসকদের পক্ষে কিছু বলা সম্ভব নয়।

Tags

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close
Close