দেশবিনোদনভাইরাল

ডিপ্রেশন নিয়ে মুখ খুলতেই সুশান্ত ফ্যানেদের কাছে কটাক্ষের শিকার দীপিকা

মহানগর বার্তা ওয়েবডেস্ক : অভিনেতা সুশান্ত সিং রাজপুতের মৃত্যুর সময়সীমা কয়েকমাস অতিক্রান্ত হলেও জল্পনা এখনো তুঙ্গে। প্রাথমিক ভাবে সুশান্তের মৃত্যুর কারণ হিসেবে মানসিক অবসাদের কথা সামনে আসতেই স্বজনপোষকে কটাক্ষ করে সমগ্র বলিউড বয়কট অভিযান জারি রেখেছে নেটিজেনরা।তবে সুশান্তের মৃত্যুর কয়েকদিন পরেই অভিনেত্রী দীপিকা পাড়ুকোন মানসিক অবসাদ সম্পর্কিত একটি পোস্ট করেন সোশ্যাল মিডিয়ায়। এদিন বিরুদ্ধেই এদিন মুখ খুললেন নেটিজেনরা।

 

প্রসঙ্গত, টুইট্যারে ‘রিপিট আফটার মি’ লিখে দীপিকা লিখেছিলেন ডিপ্রেশন ট্রিটেবল, ডিপ্রেশন কিউরেবল, ডিপ্রেশন প্রিভেন্টেবল অর্থাৎ মানসিক অবসাদ ব্যবহারযোগ্য, মানসিক অবসাদ অবশ্যই সরিয়ে তোলা যায় এবং ডিপ্রেশন প্রতিরোধযোগ্য। তৎকালীন সময়ে নেটদুনিয়া তা অগোচর করলেও এদিন জনসমক্ষে এই পোস্টটি আসার সাথে সাথেই ভাইরাল হয়ে পড়ে সেটি।

 

নেটিজেনদের মধ্যে অধিকাংশই দীপিকার এই মন্তব্যকে কটাক্ষ করে সরাসরি বিরোধিতা করেছেন। এই বিষয়ে কৃষ্ণ কুমার নামের এক ব্যক্তি সরসরি রণভিরের অদ্ভুত ভঙ্গিমায় তোলা একটি ছবি পোস্ট করেন এবং পাশাপাশি সুশান্তের একটি ছবি পোস্ট করে লেখেন, দীপিকার কাছে এই মানুষটি নরম্যাল কিন্ত সুশান্ত হলো অ্যাবনরমাল। এছাড়াও গৌরব মিশ্র নামের আরেক ব্যক্তি তাঁর এই পোস্টের বিরুদ্ধে মানসিক অবসাদকে বাইপোলার ডিসঅর্ডারের আখ্যা দিয়ে মহেশ ভাট এবং রিয়ার একটি ছবি দিয়ে ব্যঙ্গার্থক ইঙ্গিত প্রদান করেছেন। এছাড়াও নানাবিধ মন্তব্যের মাধ্যমে বিরোধ করেছে সমগ্র নেটদুনিয়া।

অন্যদিকে, সমগ্র দেশ জুড়ে যখন CAA, NRC নিয়ে উত্তেজনাময় পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছিলো তখন জওহরলাল নেহেরু বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রছাত্রীদের আন্দোলনকে সমর্থন জানিয়ে দীপিকা উপস্থিত ছিলেন সেখানে। তবে এদিন দীপিকার এহেন মন্তব্যে তাঁর এই পদক্ষেপকে ভন্ডামি বলে সরাসরি ইঙ্গিত করেছেন নেটিজেনরা। তাদের মতে দীপিকা শুধুমাত্র শিরোনামে আসতে চেয়েছিলেন তাই তিনি সেখানে উপস্থিত ছিলেন নাহলে এক অভিনেতার মানসিক অবসাদ নিয়ে কখনোই তিনি এরম মন্তব্য করতে পারতেন না।

Tags

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close
Close