দেশ

করোনা নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি মা, মেয়েকে ধর্ষণ করল হাসপাতালের কর্মীরাই

মহানগরবার্তা ওয়েবডেস্ক: পুরুষের যৌন লালসা যে কত ভয়ঙ্কর হতে পারে ভারতের মতো দেশে বারবার সেই দৃষ্টান্তই উঠে আসে চোখের সামনে। পরিসংখ্যান বলে, ভারতে দৈনিক ধর্ষণের সংখ্যা প্রায় ১০০ ছুঁই ছুঁই, প্রতি ১৫ মিনিট অন্তর এখানে একটা করে ধর্ষণের ঘটনা ঘটে।করোনা ভাইরাসের অতিমারীর আবহে মানুষের দৈনন্দিন জীবনের স্বাভাবিক ছন্দ বিপর্যস্ত হয়েছে ঠিকই, কিন্তু তা লাগাম লাগাতে পারে নি ধর্ষণে। ধারা বজায় রেখেই এবার সামনে এসেছে আরো এক নাবালিকা ধর্ষণের ঘটনা।

হাসপাতালে ভর্তি এক করোনা আক্রান্ত মহিলার নাবালিকা কন্যাকে ধর্ষণ করেছে হাসপাতালেরই এক কর্মী এবং তাঁর অনুচরেরা, এমনটাই অভিযোগ উঠেছে কর্ণাটকে। ১৬ বছরের ওই তরুণীর বয়ানের ভিত্তিতে এখনও পর্যন্ত ২জনকে আটক করেছে পুলিশ। ঘটনার সঙ্গে যুক্ত আরো ২জন অভিযুক্ত এখনও অধরা।

পুলিশ সূত্রের খবরে জানা গেছে, ঘটনাটি ঘটেছে তামিলনাড়ুর শিভামোগ্গা অঞ্চলে। ঘটনায় মূল অভিযুক্ত কর্ণাটকের ম্যাকগ্যান হাসপাতালের কর্মী। ওই হাসপাতালেই গত ১৫ দিন ধরে চিকিৎসা চলছে নির্যাতিতার করোনা আক্রান্ত মায়ের। মায়ের সঙ্গে দেখা করতে গেলে অভিযুক্ত যুবক নাবালিকার সঙ্গে বন্ধুত্ব পাতায় বলে জানা গেছে।

এরপরই ঘটনার দিন নাবালিকাকে গাড়ি করে ঘুরতে নিয়ে যাওয়ার প্রস্তাব দেয় অভিযুক্ত। ঘোরা হয়ে গেলে হাসপাতালে আবার নামিয়ে দিয়ে যাওয়ার প্রতিশ্রুতিও দেওয়া হয় তাঁকে। গাড়ি করে একটি ফাঁকা এলাকায় নিয়ে গিয়ে ৪ জন মিলে ওই নাবালিকাকে ধর্ষণ করে বলে অভিযোগ। পরে হাসপাতালের সামনে তাঁকে ফেলে দিয়ে যাওয়া হয়। হাসপাতালে গিয়ে নিজের মাকে সমস্ত ঘটনা জানালে তিনি বিষয়টি হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ ও পুলিশের সামনে আনেন। নাবালিকার অভিযোগের ভিত্তিতে পকসো আইনে মামলা দায়ের করা হয়েছে বলে জানা গেছে সূত্রের খবরে।

পুলিশ জানিয়েছে অভিযোগ দায়ের হওয়ার কয়েক ঘন্টার মধ্যেই ২ জন অভিযুক্তকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তাঁদের জিজ্ঞাসাবাদের মাধ্যমে বাকি ২ জনের তল্লাশি চালাচ্ছে তাঁরা।

Tags

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close
Close