দেশ

যোগী রাজ্যে ফের ধর্ষণ! আত্মহত্যায় নিজের জীবন শেষ করলো দলিত তরুণী

উত্তরপ্রদেশ: উত্তরপ্রদেশের নারী নির্যাতনের ঘটনা যেন থামতেই চাইছে না। গত কয়েক মাস ধরে যোগীর রাজ্যে ক্রমেই বেড়ে চলেছে মহিলাদের উপর জঘন্য অপরাধের সংখ্যা। কিছুদিন আগেই হাথরাসের তরুণীর উপর নারকীয় অত্যাচারের ঘটনা সামনে আসতেই তোলপাড় শুরু হয়েছিল গোটা দেশে। তার রেশ কাটতে না কাটতেই আবারো ওই রাজ্যের বুন্দেলখণ্ডের এক ঘটনা সামনে এল।

জানা গেছে, বুন্দেলখণ্ডের চিত্রকূট অঞ্চলের পনেরো বছর বয়সী এক তথাকথিত নিম্ন বর্ণের নাবালিকা আত্মহত্যার পথ বেছে নিয়েছে। তাঁকে কিছুদিন আগেই হাত পা এবং মুখ বাঁধা অবস্থায় পাওয়া গেছিল স্থানীয় এক এলাকা থেকে। তরুণীর মায়ের অভিযোগ, তাঁর মেয়েকে বাঁধা অবস্থায় খুঁজে পাওয়ার পর তিনি তিনজন ব্যক্তিকে ওই স্থান থেকে বেরিয়ে যেতে দেখেছিলেন। কিন্তু পুলিশের কাছে অভিযোগ জানালে পুলিশ সেই অভিযোগের ভিত্তিতে কোনো পদক্ষেপ নেয় নি বলে জানিয়েছেন তিনি।

মঙ্গলবার সকালে ওই বালিকা নিজের বাড়িতেই আত্মহত্যা করেছে বলে জানা গেছে। বালিকার মৃত্যুর পর পুলিশ এই ঘটনায় ধর্ষণ, আত্মহত্যায় প্ররোচনা দানের অভিযোগে এফআইআর দায়ের করেছে। পুলিশের তরফ থেকে অবশ্য নিস্ক্রিয়তার অভিযোগ সম্পূর্ণ অস্বীকার করা হয়েছে। সার্কেল অফিসার রাজনীশ যাদব বলেছেন তরুণীর পরিবার আগে কোনো অভিযোগ দায়ের করে নি।

মৃতা তরুণীর মায়ের বক্তব্য, গত ৮ অক্টোবর ঘটনার পরেই তিনি থানায় গিয়ে উক্ত অফিসারের কাছে নিজের অভিযোগ জানান। জানান কী অবস্থায় তাঁর মেয়েকে তিনি খুঁজে পেয়েছেন। তিনজন ব্যক্তিকে ওই স্থান থেকে বেরিয়ে যেতে দেখেছেন, পুলিশকে তাও জানিয়েছেন বলে দাবি করেছেন তিনি।

মঙ্গলবার সকালে বাড়িতে যখন অন কেউ ছিল না, তখন বালিকার ভাই তাঁর মৃতদেহ প্রথম দেখতে পায়। সেই গিয়ে তাঁর মা বাবাকে খবর দেয়। বালিকার মায়ের কথা অনুযায়ী, তাঁর মেয়ে ওই ঘটনার পর থেকে বেশ কিছুদিন ধরেই সর্বক্ষণ মনমরা হয়ে ছিল। ৮ অক্টোবর হঠাৎই তাঁর মেয়েকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছিল না, পরে সংশ্লিষ্ট এলাকা থেকে ওই অবস্থায় খুঁজে পাওয়া যায় তাঁকে। উক্ত তিন ব্যক্তির মুখ রুমাল দিয়ে ঢাকা ছিল বলেও জানিয়েছেন বালিকার মা। কিছু গ্রামবাসীর দাবি, তাঁরা ওই তিন ব্যক্তিকে স্থানীয় মাদকদ্রব্যের দোকানেও দেখেছিলেন।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close
Close