দেশ

হাথরাসে দাদাগিরি যোগী পুলিশের! রাহুলের পর ডেরেকদে’র ঢুকতে বাঁধা, ধাক্কা মেরে ফেলার অভিযোগ

হাথরাস:উত্তরপ্রদেশের হাথরাস গণধর্ষণকাণ্ডে নির্যাতিত ও নিহত তরুণীর সঙ্গে দেখা করতে যাওয়ার পথে গতকাল রাহুল গান্ধী ও প্রিয়াঙ্কা বডঢ়াকে আটকানো হয়েছিল। আজ আটকানো হলো তৃণমূলের প্রতিনিধি দলকে। হাথরাসে নির্যাতিতা তরুণীর বাড়ি থেকে দেড় কিলোমিটার আগে বিশাল পুলিশবাহিনীর সাহায্যে আটকে দেওয়া হয় তৃণমূলের প্রতিনিধি দলকে। তৃণমূলের রাজ্যসভার নেতা ডেরেক ও ব্রায়ানের নেতৃত্বে প্রতিনিধি দলে আছেন তৃণমূলের লোকসভার সাংসদ কাকলি ঘোষ দস্তিদার, প্রতিমা মন্ডল এবং প্রাক্তন সাংসদ মমতাবালা ঠাকুর।

দিল্লি থেকে প্রায় ২০০ কিলোমিটার পথ পেরিয়ে এসে হাথরাসে ঢোকার ঠিক দেড় কিলোমিটার আগে বিশাল পুলিশবাহিনীর সাহায্যে তৃণমূলের প্রতিনিধি দলকে আটকে দেওয়া হয় বলে অভিযোগ। এই সময় জোর করে প্রবেশ করতে গেলে পুলিশের সঙ্গে তাদের ধস্তাধস্তি হয়। সেই ধস্তাধস্তিতে ডেরেক ও’ব্রায়ান পড়ে যান বলে অভিযোগ। তৃণমূলের প্রতিনিধিদল সূত্রের খবর তারা পুলিশকে জানায় যে কেবলমাত্র নির্যাতিতার পরিবারের পাশে দাঁড়াতে এবং সমবেদনা জানাতে এসেছেন। তবু পুলিশ তাদের কোনমতেই প্রবেশের অনুমতি দেয়নি, বরং উল্টে ধাক্কা মেরে সরিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করেছে বলে অভিযোগ।

তৃণমূলের প্রতিনিধি দলের তরফে ডেরেক ও ব্রায়ানের বক্তব্য “আমরা শান্তিপূর্ণভাবে নির্যাতিতার পরিবারের সঙ্গে দেখা করতে ও সমবেদনা জানাতে যাচ্ছিলাম। আমাদের হাতে কোনো অস্ত্র ছিল না। এটা কি ধরনের জঙ্গল রাজত্ব যেখানে নির্যাতিতার পরিবারের সঙ্গে দেশের সাংসদদের দেখা করতে দেওয়া হয় না ?” সূত্রের খবর হাথরাসে প্রবেশ করতে না পেরে ওখানেই ধরনায় বসে পড়েছে তৃণমূলের প্রতিনিধিদলটি।

এদিকে হাথরাস কাণ্ডে আজ এলাহাবাদ হাইকোর্ট যোগী প্রশাসনের অফিসারদের তলব করেছে। এর পরেই টুইট করে প্রিয়াঙ্কা গান্ধী মন্তব্য করেছেন “অবশেষে ন্যায়ের আশা দেখা যাচ্ছে।”

Tags

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close
Close