বিনোদনভাইরালমহানগরসিনেমা

‘চ্যানেলকে ডেকে কোনদিন জন্মদিন পালন করিনি’, আজকের দিনেও কেন ঠোঁটকাটা বিপ্লব?

মহানগর বার্তা ওয়েবডেস্কঃ বর্তমানে চলচ্চিত্র তারকাদের জন্মদিন পালন নিয়ে আলোচনার অন্ত নেই। একসময়ের বাংলা সিনেমা জগতে খলনায়কের বিশিষ্ট চরিত্রাভিনেতা, পরিচালক বিপ্লব চট্টোপাধ্যায় একটি বহুল প্রচারিত বিশেষ সংবাদপত্রে তাঁর জন্মদিন পালন নিয়ে একটি নাতিদীর্ঘ লেখা লিখেছেন। তিনি সেখানে বর্তমান তারকাদের আড়ম্বরপূর্ণ জন্মদিন পালন এবং সেটাকে নিয়ে প্রচারের আলোর ছড়িয়ে থাকাকে ব্যাঙ্গ করেন বিপ্লব। ওই বিশেষ সংবাদপত্রে তাঁর লেখায় তিনি লেখেন “কোনও চ্যানেলকে ডেকে হইহই করে জন্মদিন পালন করব না। ইন্ডাস্ট্রি থেকেও কেউ আসবেন না। আমার লোকদেখানো কিচ্ছু নেই। তা ছাড়া আমি কী এমন যে, ইন্ডাস্ট্রি আমায় শুভেচ্ছা জানাবে?”

সংশ্লিষ্ট সংবাদপত্রের ওই লেখাতেই তিনি লেখেন “তবে একটা সময়ে সোনালি দিন আমারও ছিল। তখনও কোনও দিন লোক ডাকিনি। এখন তো পুজোর আলপনা আঁকতেও সবাই দেখি চ্যানেলকে ডাকেন। নিশ্চয়ই দর্শকদের ভাল লাগে সে সব দেখতে। তাই চ্যানেল কর্তৃপক্ষ অনুমতি দেন। ছোটবেলায় আমার মা হাতেগোনা বন্ধু, আত্মীয়দের হয়তো ডাকতেন। তখনও মাংস রান্না হত। বাবা দুর্দান্ত রাঁধতেন। ওঁর হাতের মাংসের বিশেষ পদ ছিল আমার জন্মদিনের উপহার। নতুন জামা হত কি না, মনে নেই। তবে টলিউডের বিশেষ কেউ আমার জন্মদিন আলাদা করে উদ্‌যাপন করতেন, এমন কখনও হয়নি। মোচ্ছব হয়নি, লোক দেখানো উদ্‌যাপনেও ছিলাম না। যা হয়েছে ঘরোয়া ভাবে। মা-বাবার পরে বোন বেশ কিছু বছর বিশেষ দিনটি পালন করত। এখন সব দায়িত্ব স্ত্রী আর ছেলের কাঁধে।”

ধীরে ধীরে সমস্ত প্রতিভাবান সেনালীদিনের ব্যক্তিত্বরা প্রয়াত হচ্ছেন বলেও ওই বিশেষ সংবাদপত্রের লেখায় আক্ষেপ ব্যক্ত করেন তিনি। তিনি সেখানে লেখেন “সদ্য পরিচালক তরুণ মজুমদারও চলে গেলেন। বাংলা বিনোদন দুনিয়ায় প্রচুর অবদান তাঁর। অনেক কিছু দিয়ে গেলেন। হয়তো আরও দেওয়ার বাকি ছিল। সেই সুযোগই পাননি। এক এক সময়ে মনে হয়, আমারই বা আর বেঁচে থেকে লাভ কী? বেঁচে থাকা মানেই বসে বসে অবক্ষয় দেখা। সমাজ, রাজনীতি, চেতনা, শিল্প-সংস্কৃতি— সব কিছুর অবক্ষয়। এ বার বোধহয় বিদায় নেওয়াই ভাল। অন্যায় দেখতে পারি না। স্পষ্ট প্রতিবাদ জানাই। তার পরেই সবার সঙ্গে ভুল বোঝাবুঝি।”

প্রসঙ্গত বিপ্লব চট্টোপাধ্যায় একবার সিপিএম প্রার্থী হিসাবে টালিগঞ্জ কেন্দ্র থেকে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতাও করেছিলেন। যদিও সেইসময় তৃণমূল প্রার্থী তাপস পালের কাছে পরাজিত হন তিনি।

Tags

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button
নিজের লেখা নিজে লিখুন
Close
Close