গ্রিন রুমছোট পর্দা

‘চা বিক্রেতা প্রধানমন্ত্রী হলে, আমি কেন মুখ্যমন্ত্রী হতে পারবো না!’, ইঙ্গিতপূর্ণ মন্তব্য রাখি সাওয়ান্তের

মহানগর বার্তা ডেস্ক: “আমিই এবার স্মৃতি ইরানি পার্ট টু, ভোটে লড়ছি। নরেন্দ্র মোদী, অমিত শাহের জানানোর কথা ছিল কিন্তু আমার মনের ড্রিম গার্ল হেমা মালিনী আগেই বলে দিয়েছেন সেই কথা!” সোশ্যাল-দুনিয়ায় ভিডিও পোস্ট করে এই ‘সুখবর’ দিলেন অভিনেত্রী রাখী সাওয়ান্ত। তিনি বলেন, ”আমি জন্ম থেকেই মানুষের সেবা করি, এবারও সেটাই করব। যদি এখন চা বিক্রেতা প্রধানমন্ত্রী হতে পারেন, তাহলে আমি কেন মুখ্যমন্ত্রী হব না!” রাখীর এই বক্তব্য প্রকাশের পর মুহূর্তেই ভাইরাল ওই ভিডিও। রাখীর ভক্তদের মধ্যেও শোরগোল পড়েছে ফের।

যদিও বারবার চমক দিতে সিদ্ধহস্ত রাখী কি সত্যিই ভোটে দাঁড়াচ্ছেন, না কি অন্য কোনও সূত্র রয়েছে এই বয়ানে, প্রশ্ন উঠেছে তা নিয়েও! যদিও এই ঘটনার কারণ রয়েছে ভিন্ন। সম্প্রতি, উত্তর প্রদেশের মথুরা আসনের প্রার্থী নিয়ে জল্পনা শুরু হয়েছে। অনেকেই বলছেন, আর ওই আসনের বিজেপি সাংসদ হেমা মালিনী নন, এবার ওই অঞ্চল থেকে প্রার্থী হতে পারেন অভিনেত্রী কঙ্গনা রানাওয়াত। এই প্রসঙ্গে হেমা মালিনী জানান, ”ভগবান কৃষ্ণ জানেন কী করবেন। কিন্তু কঙ্গনা প্রার্থী হবেন, এটা যদি ঘটে খুব ভালো খবর।” এর সঙ্গেই হেমা বলেন, ”রাখী সাওয়ান্তও লড়তে পারেন!” যদিও বলিউডের প্রবীণ অভিনেত্রীর রাখী-সংক্রান্ত ওই বক্তব্যে কটাক্ষ খুঁজে পেয়েছেন অনেকেই। এবার সেই মন্তব্যের পাল্টা প্রতিক্রিয়া দিলেন রাখী। যদিও নিজস্ব ভঙ্গিতে। রাখী জানালেন, তিনি হেমা মালিনীর বক্তব্যে আনন্দিত। তিনি তাঁর নাম করেছেন তার ফলে খুশিই হয়েছেন রাখী। এর সঙ্গেই টেনে আনলেন নরেন্দ্র মোদী-অমিত শাহ প্রসঙ্গও। অর্থাৎ নিজস্ব কৌশলে পাল্টা কটাক্ষ ছুড়লেন সাংসদ হেমাকে। অর্থাৎ এটি নিছক মশকরা। রাখী যে কোনও নির্বাচনে লড়ছেন, এই খবর এখনও সত্য নয়, এটাই স্পষ্ট করেছেন অভিনেত্রী।

প্রসঙ্গত, ২০১৪ সালে লোকসভা নির্বাচনে লঙ্কা প্রতীকে নির্বাচনে দাঁড়ান রাখী সাওয়ান্ত। মুম্বই উত্তর-পশ্চিম আসনে প্রার্থী হন তিনি। বিপুল ভোটে হরেন। জামানত জব্দ হয় রাখীর। অস্তিত্ব হারায় তাঁর, রাষ্ট্রীয় আপনা দলের। পরে রিপাবলিকান পার্টি-তে যোগ দেন তিনি।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button
নিজের লেখা নিজে লিখুন
Close
Close