ভাইরাল

জয় শাহ একা নন, জাতীয় পতাকাকে স্যালুট না করায় ‘গদ্দার’ তকমা জুটেছিল উপ-রাষ্ট্রপতির

মহানগর বার্তা ওয়েবডেস্কঃ জয় শাহ(Jay Shah) জাতীয় পতাকা(National Flag) ধরতে চাইছেন না, এই জাতীয় একটি ভিডিও ভাইরাল হতেই শোরগোল গোটা সোশ্যাল মিডিয়া জুড়ে। তাঁর বিরুদ্ধে অনেকেই অভিযোগ এনেছেন জাতীয় পতাকাকে অশ্রদ্ধা করবার। তৃণমূলের সর্বভারতীয় সভাপতি অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় কড়া ভাষায় সমালোচনা করেছেন জয় শাহের(Jay Shah)। পাল্টা যুক্তিতে অবশ্য বিসিসিআইয়ের এক কর্তা বলেছেন, জয় শাহ প্রোটোকল মেনেই এই কাজ করেছেন। নিয়ম অনুযায়ী, ভারতের বাইরে এশিয়া কাপের মতো মঞ্চে তিনি আছেন মানে তিনি সেখানে আর শুধু বিসিসিআই সচিব নন। এসিসির পদাধিকারীও বটে। আর এসিসির (ACC) পদাধিকারীরা প্রোটোকল অনুযায়ী, কোনও নির্দিষ্ট দল বা একাধিক দল বা তৃতীয় কোনও পক্ষকে সমর্থন করতে পারেন না।

জয় শাহকে(Jay Shah) নিয়ে এই বিতর্ক আবার অন্য একটি ঘটনার স্মৃতি উস্কে দিয়েছে। উচ্চ পদাধিকারী কোনো ব্যক্তির জাতীয় পতাকাকে অবমাননা করার অভিযোগ এই নতুন নয়। ২০১৫ সালে ভারতের তৎকালীন উপ-রাষ্ট্রপতি হামিদ আনসারির বিরুদ্ধেও ঠিক এমন অভিযোগ এনেছিলেন অনেকে।

কী ঘটেছিল?

২০১৫ সালের প্রজাতন্ত্র দিবসের অনুষ্ঠানকে ঘিরে শুরু হয় বিতর্ক। যার কেন্দ্রবিন্দু ছিলেন তৎকালীন উপরাষ্ট্রপতি হামিদ আনসারি। সেখানে জাতীয় পতাকা উত্তোলনের সময় হামিদ আনসারি স্যালুট করেননি। আর তা নিয়েই শোরগোল পড়ে যায় গোটা দেশ জুড়ে। বিভিন্ন কটুক্তি ধেয়ে আসে হামিদ আনসারিকে লক্ষ্য করে। সামাজিক মাধ্যমে তাঁকে ‘গদ্দার’, ‘দেশদ্রোহী’ ইত্যাদি বলে আক্রমণ করা হয়।অভিযোগকারীদের সিংহভাগই ছিলেন বিজেপি(BJP) সমর্থক।

যদিও, সেই অভিযোগে ছিল সারবত্তাহীন। নির্দিষ্ট গাইডলাইনকে মান্যতা দিয়েই জাতীয় পতাকাকে স্যালুট করা থেকে বিরত থেকেছিলেন হামিদ আনসারি।

কী সেই গাইডলাইন?

ভারতের ‘ন্যাশনাল ফ্ল্যাগ কোড’ এর ৬নং ধারায় এই বিষয়ে স্পষ্ট করা আছে। এই ধারা অনুযায়ী, “জাতীয় পতাকা উত্তোলন বা নামানোর সময়, অথবা কোনো প্যারেডে জাতীয় পতাকা বহন করার সময় সবাইকে পতাকার দিকে মুখ করে সাবধান ভঙ্গিতে দাঁড়াতে হবে। যারা সামরিক পোষাকে থাকবেন, তাঁদেরই শুধুমাত্র পতাকাকে স্যালুট করতে হবে।”º

এই ধারা অনুযায়ী হামিদ আনসারি সেদিন কোনো ভুল করেননি। উপরাষ্ট্রপতি হিসাবে তিনি ‘ইন্ডিয়ান ন্যাশনাল ফ্ল্যাগ কোড’কে মান্যতা দিয়েছেন। সেই সময়েই উপরাষ্ট্রপতির দপ্তর থেকে একটি বিজ্ঞপ্তি জারি করা হয়। সেখানে এই ঘটনার ব্যাখ্যাও দেওয়া হয়।

আরও পড়ুন: শিক্ষা মানেনা ধর্মের বিভেদ! কেরলের মুসলিম ইনস্টিটিউটে গীতা পড়ছেন ছাত্র-ছাত্রীরা

কিন্তু সেই সময় তুমুল আক্রমণের তাঁকে। সেই অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন তৎকালীন বিদেশ মন্ত্রী সুষমা স্বরাজ, প্রতিরক্ষা মন্ত্রী রাজনাথ সিংহ। তাঁরাও জাতীয় পতাকাকে স্যালুট করেননি। নির্দিষ্ট প্রথা মাফিকই তাঁরা করেননি। কিন্তু শুধু কেন হামিদ আনসারিকে আক্রমণ করা হচ্ছে? এই নিয়েও সেইসময় প্রশ্ন তোলেন কেউ কেউ।

আরও পড়ুন: স্বাধীনতার ৭৫ বছরেও ‘ধর্মের জন্য’ শো ক্যানসেল, কমেডিয়ান ফারুখের হয়ে গর্জে উঠলেন মহুয়া

জয় শাহ(Jay Shah) জাতীয় পতাকা নিতে অস্বীকার করায়, নেটিজেনরা ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। একটি অংশ যদিও যুক্তি দিয়েছে, জয় শাহ এসিসি এর সভাপতি। তাই তিনি নিরপেক্ষ ভূমিকা রাখতে পতাকা নেননি। সঠিক কাজই করেছেন। সেই প্রেক্ষিতেই ফিরে আসছে হামিদ আনসারির ‘হেনস্তা’র ঘটনাও। সেদিন তাহলে নিয়মবিধি না জেনেই, হামিদ আনসারিকে কেন আক্রমণ করা হয়েছিলো? এই যুক্তি এখন সামনে আনতে দেখে যাচ্ছে জয় শাহের বিরোধীদের।

সবার খবর সঠিক খবর পড়তে চোখ রাখুন মহানগর বার্তায়

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button
নিজের লেখা নিজে লিখুন
Close
Close