আম আদমি

অন্যদুর্গা! পাহাড়ি গাঁয়ের রোগ সারাচ্ছেন এইট পাশ কমলা ‘ডাক্তার’

মহানগর বার্তা ডেস্ক: কমলা নেগি। এলাকার লোক তাঁকে চেনেন ‘টায়ার ডাক্তার’ হিসেবে। নাহ্, তিনি আপনার শরীর-স্বাস্থ্য ভালো রাখার চিকিৎসক নন, তবে তিনি সারিয়ে তোলেন ওদের। প্রতিমুহূর্তে জুড়িয়ে দেন বিচ্ছিন্ন কলকব্জা। কী ভাবছেন? কীসের ডাক্তার তিনি? আসলে তিনি গাড়ি থুড়ি টায়ারের ডাক্তার। তিনি দিনের পর দিন ঠিক করেন গাড়ি।

নৈনিতালের অন্য দিদি ‘ইরান লেডি’ কমলা ঠিক করছেন বাই-সাইকেল থেকে জেসিবি, সবের ক্ষতবিক্ষত টায়ার। কমলা, উত্তরাখণ্ডের বাসিন্দা। নৈনিতালের ওদাখাঁ ব্লকের নিম্মমধ্যবিত্ত পরিবারের এই মহিলা একটি গাড়ি সারানোর গ্যারাজ চালান। রামগড়-মুক্তেশ্বর রোডের উপর প্রায় ১৫ বছর ধরে এই দোকান চালাচ্ছেন তিনি। একাধিক পুরুষকর্মী থাকলেও টায়ারের ডাক্তার হিসেবে বিখ্যাত হয়েছেন ট্র্যাক্টর, জেসিবি, বাই-সাইকেলের টায়ার জুড়িয়ে। সমাজের তথাকথিত পুরুষের কাজ করে নিজেই নিজের কাছে উদাহরণ হয়ে উঠেছেন তিনি। পশ্চিম দুনিয়া ছাড়া আমরাও পারির যে জয়গান আজ গ্রথিত হচ্ছে এদেশেও তারই যেন উৎকৃষ্ট উদাহরণ করে তুলেছেন নিজেকে।

অন্যদুর্গা কমলার পথচলা শুরু হয় ২০০৪ সালে। তাঁর এলাকার বাচ্চাদের সাইকেল চালানোর শখ দেখে শুরু করেন নতুন কাজ। বাচ্চাদের জন্য এক ঘণ্টায় ৫ টাকা নেওয়ার পরে, বাচ্চাদের সাইকেল শিখতে সাহায্য শুরু করেন তিনি। পরিচিতি পান ক্রমশ। এই সূত্রেই টায়ার সারানো শুরু হয় তাঁর। এরপর দুই সন্তানের মা কমলা শুরু করেন নিজের ছোট্ট দোকান। স্বামী-হীন সংসারে সাহস নিতে হয় তাঁকে। সমস্ত প্রতিবন্ধকতা দূর করেই এগিয়ে যান অনন্যা কমলা। ছোটবেলা থেকেই ইচ্ছা ছিল নিজেই কিছু করার। অষ্টম শ্রেণী পর্যন্ত পড়াশুনা করেন তিনি। ১৮ বছর বয়সে বিবাহিত জীবন শুরু করেন টায়ারের ডাক্তার।

শুধু কর্মজীবনের লড়াই নয়, সংসার-সন্তান সামলাতেও অসুবিধার সম্মুখীন হয়েছেন তিনি। বিবাহিত কন্যা আর একমাত্র বিএসএফ-পুত্র নিয়ে এখন সংসার তাঁর।

ভয়কে জয় করে একা মহিলা আজ হয়ে উঠেছেন মৌলিক। এলাকার পরিচিত দিদি। নিজের কাজেই সম্মান ছিনিয়ে নিয়েছেন কমলা। ঈশ্বরপ্রদত্ত চমৎকার কিছু নয়, শুধুমাত্র লড়াই আর বেঁচে থাকার তাগিদে আজ তিনি অভিনব। ডাক্তারি করেই রোজ সারিয়ে তুলছেন একাধিক টায়ারের রোগ।

Tags

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button
নিজের লেখা নিজে লিখুন
Close
Close