fff
বিনোদন

Laal Singh Chaddha:আমিরের পাশে দাঁড়ালেন অভিনেতা, বললেন ভালো ছবিকে ‘ট্রোল’ করা হচ্ছে

মহানগর বার্তা ওয়েবডেস্ক: মুক্তির আগেই একের পর এক বিতর্কে বিদ্ধ আমির খানের লাল সিং চাড্ডা (Laal Singh Chaddha)। ইতিমধ্যেই সোশ্যাল মিডিয়ায় ট্রেন্ড হয়ে দাঁড়িয়েছে ‘বয়কট লাল সিং চাড্ডা’ হ্যাজট্যাগ। মূলত আমির খান ও তাঁর মায়ের চরিত্র করা মোনা সিংকে নিশানা করে নেটিজেনদের একটা বড় অংশ শুধু বয়কটের (Boycott) ডাক দিয়েই ক্ষান্ত হচ্ছেন না, যাতে লাল সিং চাড্ডা (Laal Singh Chaddha) বক্স অফিসে মুখ থুবড়ে পড়ে তার জন্যে রীতিমতো সক্রিয় তাঁরা। এই অবস্থায় আমির খান প্রকাশ্যে তাঁর সিনেমা বয়কট না করার আবেদন জানিয়েছেন। ধীরে ধীরে বলিউডে তাঁর সহকর্মীরাও লাল সিং চাড্ডার পাশে এসে দাঁড়াতে শুরু করেছেন। যাতে সিনেমাটিকে বয়কট করা না হয় সেই আবেদন‌ও জানাচ্ছেন তাঁরা।

তবে সবার আগে আমির খানের পাশে এসে দাঁড়ালেন বলিউড অভিনেতা তথা মডেল মিলিন্দ সোমান‌। তিনি ট্যুইট (Twitter) করে লিখেছেন, “ট্রোল (Trolls) কখনও একটা ভালো সিনেমাকে থামাতে পারে না”। বরাবরের স্পষ্টভাষী মিলিন্দ সোমান‌ ট্রোলারদের যুক্তি নিয়েই প্রশ্ন তুলেছেন। একজনের বয়স ৫৭ বছর হলে তিনি কেন ১০৩ বছর বয়সীর চরিত্রে অভিনয় করতে পারবেন না সেই নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন তিনি। যদি কাউকে মেকাপ করে সত্যিই ১০৩ বছর বয়সীর মতো লাগে তবে সমস্যাটা কোথায় সেটা জানতে চেয়েছেন এই অভিনেতা।

ঘটনা হল, লাল সিং চাড্ডায় (Laal Singh Chaddha) অভিনেত্রী মোনা সিং নায়ক লাল সিং অর্থাৎ আমির খানের ৫৭ বছর বয়সী মায়ের চরিত্রে অভিনয় করছেন। তাঁর নিজের প্রকৃত বয়স ৪০। এই বিষয়টি তুলে ধরে ট্রোল করা হচ্ছে। ট্রোলারদের বক্তব্য, একজন ৪০ বছর বয়সী মহিলাকে দিয়ে কেন ৫৭ বছরের বৃদ্ধার চরিত্রে অভিনয় করানো হবে। যদিও যুক্তির নিরিখে এটা যে দাঁড়ায় না তা সব সিনেমাপ্রেমী‌ই জানেন।

তবে লাল সিং চাড্ডা (Laal Singh Chaddha) বয়কটের ডাক দেওয়ার পিছনে আমির খানের ৭ বছর পুরানো একটি মন্তব্যই মূল হাতিয়ার হয়ে উঠেছে। ২০১৫ সালে দেশের অসহিষ্ণু পরিস্থিতি নিয়ে মন্তব্য করেছিলেন আমির খান। বলেছিলেন, “আমাদের দেশ প্রকৃতিগতভাবে সহিষ্ণু। কিন্তু অসুস্থ মানসিকতার একদল মানুষ ঘৃণা ছড়াচ্ছে”। এই মন্তব্য সেই সময় বিজেপি ও হিন্দুত্ববাদীদের কাছে আমির খানকে চক্ষুশূল করে তোলে। লাল সিং চাড্ডা (Laal Singh Chaddha) রিলিজের তারিখ ঘোষণা হওয়ার পর থেকে মূলত হিন্দুত্ববাদীরাই সিনেমাটি বয়কটের ডাক দিয়ে আমির খানের সেই পুরানো মন্তব্যকে সামনে তুলে আনছে। তাঁদের দাবি দেশের মানুষকে অপমান করেছেন আমির। চাপে পড়ে বিবৃতি দিয়ে আমির খান জানিয়েছেন, তিনি দেশকে ভালোবাসেন, দেশের মানুষকে ভালোবাসেন। তাঁকে যেন ভুল বোঝা না হয়। যদিও তাতে ক্ষুব্ধ নেটিজেন্দের একাংশের মন এখনও গলেনি। পাশাপাশি এই সিনেমায় আমির খানকে ভারতীয়দের মতো দেখতে লাগছে না বলেও অনেকে অভিযোগ করেন। আবার কেউ কেউ বলছেন, লাল সিং চাড্ডায় হিন্দুদের অপমান করা হয়েছে।

ঘটনা হল, আমির খান ও অনুষ্কা শর্মার সুপারহিট সিনেমা পিকেতেও হিন্দু দেব-দেবীদের অপমান করার অভিযোগ উঠেছিল। যদিও সেই অভিযোগ পিকের মারকাটারি সাফল্যের পথে বাধা হতে পারেনি। তবে আমির খানের সিনেমাকে ঘিরে ভাবাবেগে আঘাত লাগার অভিযোগ নতুন নয়। এর আগে মঙ্গল পাণ্ডের সময় তাঁর বিরুদ্ধে মুসলমানদের ধর্মীয় ভাবাবেগে আঘাত করার পাশাপাশি ইতিহাস বিকৃত করার অভিযোগ‌ও ওঠে। থ্রি ইডিয়টসের সময় তিনি কেন কমবয়সি কলেজ ছাত্রের চরিত্রে অভিনয় করলেন সেই নিয়েও প্রশ্ন তুলেছিলেন অনেকে। পিকের সময় শুধু হিন্দুরা নয়, শিখ মুসলমান খ্রিস্টান সব ধর্মের পক্ষ থেকেই তাঁর বিরুদ্ধে ধর্মীয় ভাবাবেগে আঘাত করার অভিযোগ উঠেছিল। এই নিয়ে আদালতেও মামলা দায়ের হয়। তবে মজার মধ্যে দিয়ে বিভিন্ন ধর্মের গুরুদের ভণ্ডামি যেভাবে সর্বসমক্ষে তুলে ধরেছিল এই সিনেমাটি তা সাধারণ মানুষের কাছে যথেষ্ট সমাদর পায়। লাল সিং চাড্ডায় (Laal Singh Chaddha) আমির খান জুটি বেঁধেছেন করিনা কাপুরের সঙ্গে। থ্রি ইডিয়টসে তাঁদের জুটি সুপারহিট হয়েছিল। ফলে ‘মিস্টার পারফেকশনিস্ট’ বলে পরিচিত আমির খানের ভক্তরা আবার লাল সিং চাড্ডাকে (Laal Singh Chaddha) ঘিরে স্বপ্ন দেখতে শুরু করেছেন। তবে দেশের বর্তমান রাজনৈতিক আবহে যেভাবে সিনেমাটিকে ঘিরে বয়কটের ডাক উঠতে শুরু করেছে তাতে কেউ কেউ অশান্তির জেরে সিনেমাটির মুখ থুবড়ে পড়ার আশঙ্কাও করছেন।

এমনিতে আমির বলিউডের বাকি দুই খানের থেকে অনেক বেশি সামাজিক ও রাজনৈতিক বিষয় নিয়ে স্পষ্ট অবস্থান নিয়ে থাকেন। বহু আগে গুজরাটের নর্মদা বাঁচাও আন্দোলনের পাশে গিয়ে দাঁড়িয়ে তিনি সেই সময় রাজ্যের বিজেপি সরকারের চক্ষুশূল হয়েছিলেন। এছাড়াও একাধিকবার দেশের অসহিষ্ণু অবস্থা নিয়ে মুখ খুলে তিনি হিন্দুত্ববাদীদের রোশানলে পড়েন। বলা যেতে পারে এবার সুযোগ বুঝে হিন্দুত্ববাদীরা পাল্টা তাঁকে কোণঠাসা করার চেষ্টা করছেন। যদিও এই নিয়ে বড় কোন‌ও সংগঠনের পক্ষ থেকে এখনও পর্যন্ত সিনেমাটির বিরুদ্ধে মুখ খোলা হয়নি।

উল্লেখ্য ১৯৯৪ সালে হলিউডে মুক্তি পেয়েছিল ‘ফরেস্ট গাম্প’। যা সারাবিশ্বের বাণিজ্যিকভাবে সবচেয়ে সফল সিনেমাগুলির একটি। ফরেস্ট গাম্প অস্কার জেতে, তার‌ই অনুকরণে তৈরি হয়েছে লাল সিং চাড্ডা (Lal Singh Chaddha)। হলিউডের ফরেস্ট গাম্পে অভিনয় করেছিলেন টম হ্যাঙ্কস। তাঁর সেই অভিনয় আজও মানুষের মনে গেঁথে আছে। ফলে লাল সিং চাড্ডা (Laal Singh Chaddha) যে প্রতি পদে পদে ফরেস্ট গাম্পের সঙ্গে তুলনার মুখে পড়বে তা জানা কথা। তেমনই আমির খানের প্রতিটা শট সিনেমাপ্রেমীরা যে টম হ্যাঙ্কসের সঙ্গে তুলনা করে বসবেন এও এক অবধারিত বিষয়। এই বহুমুখী চ্যালেঞ্জ সত্ত্বেও পিছিয়ে আসেননি আমির। তবে তাঁর এই বিগ বাজেট সিনেমা বয়কটের ডাক সোশ্যাল মিডিয়ায় ট্রেন্ডিং হয়ে পড়ায় দুশ্চিন্তা যে বেড়েছে তা আর বলার অপেক্ষা রাখে না।

তবে শত প্রতিবন্ধকতা সত্বেও আগামী ১১ আগস্ট গোটা দেশজুড়ে মুক্তি পাচ্ছে লাল সিং চাড্ডা। স্বাধীনতা দিবসের সপ্তাহে সিনেমাটির ভালো ব্যবসা করার সম্ভাবনা আছে। তার ওপর এবার দেশের ৭৫ তম স্বাধীনতা দিবস হওয়ায় মানুষের মধ্যে উচ্ছ্বাস একটু বেশিই থাকবে। ফলে অনেক বেশি সংখ্যক মানুষ সিনেমা হলে ছুটে আসতে পারেন বলে মনে করছেন ফিল্ম ক্রিটিকরা।

Tags

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button
Close
Close

Adblock Detected

Please Disable your ADBlocker!