রাজ্য

সকলের জন্য স্বাস্থ্য সাথী, ভোটের আগে ঐতিহাসিক ঘোষণা মুখ্যমন্ত্রীর

মহানগরবার্তা ওয়েবডেস্ক: বিধানসভা নির্বাচন যতই এগিয়ে আসছে ক্ষমতা ধরে রাখার চেষ্টায় ততই মরিয়া হয়ে উঠছে শাসকদল। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কথায় আরো একবার প্রমাণ হল সেই কথাই। ভোটের মুখে রাজ্যের মানুষের সুবিধার্থে ফের বড় ঘোষণা করলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

দেশ জুড়ে করোনা আবহের মাঝেই এবার বাংলার ১০ কোটি মানুষের জন্য স্বাস্থ্য সাথী প্রকল্প ঘোষণা করা হল। জানা গেছে প্রত্যেক পরিবারকেই দেওয়া হবে এই প্রকল্পের সুবিধা। বস্তুত রাজ্যে সরকারি স্বাস্থ্য প্রকল্প ছিল অনেক দিন থেকেই। তবে এবার তাকে সার্বজনীন করার সিদ্ধান্ত নিলেন মুখ্যমন্ত্রী।

বৃহস্পতিবার সাংবাদিক বৈঠক করে স্বাস্থ্য সাথী প্রকল্পকে সার্বজনীন করার কথা ঘোষণা করেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তাঁর কথা অনুযায়ী, যাঁরা কোনো রকম স্বাস্থ্য বিমার সুবিধা পান না, তাঁরাও এই প্রকল্পের আওতায় ৫ লক্ষ টাকা পর্যন্ত বিমার সুবিধা পাবেন। মুখ্যমন্ত্রীর কথায়, “এই ধরুন আমার রিক্সাওয়ালারা, আমার টোটোওয়ালারা, আমার ইটভাটা কর্মীরা আমার ড্রাইভাররা…সকলেই পাবেন।” মূলত গৃহকর্ত্রীর নামে এই কার্ড ইস্যু করা হবে বলে জানা গেছে।

মুখ্যমন্ত্রী এদিন আরো জানিয়েছেন, সবটাই হবে ক্যাশলেস প্রক্রিয়ায়। সরকারি হাসপাতাল ছাড়াও প্রায় দেড় হাজার বেসরকারি হাসপাতাল এবং নার্সিং হোমকে এই প্রকল্পের আওতায় এম প্যানেল করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। ১ লা ডিসেম্বর থেকে ‘দুয়ারে দুয়ারে’ সরকারি ক্যাম্প হবে। সেই ক্যাম্পের মাধ্যমেই এই প্রকল্পের জন্য আবেদন করা যাবে বলে জানা গেছে।

তিনি জানিয়েছেন, “বিশ্বের ইতিহাসে এই প্রকল্প দৃষ্টান্ত হয়ে থাকবে। অন্য রাজ্যগুলি পরে চাইলে অনুসরণ করতে পারে।” এ জন্য সরকারের বছরে অতিরিক্ত ২ হাজার কোটি টাকা খরচ হবে, জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তৃণমূল কংগ্রেস সমর্থকদের কথায়, চিকিৎসা শাস্ত্রে কার্যত বিপ্লব ঘটালেন মুখ্যমন্ত্রী। সরকারি থেকে প্রাইভেট, চিকিৎসায় আর চিন্তা রইল না।

Tags

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close
Close