দেশহেলথ

করোনায় সবচেয়ে বেশি আক্রান্ত পুরুষরাই! স্বাস্থ্য মন্ত্রকের নতুন তথ্যে বাড়ছে উদ্বেগ

মহানগরবার্তা ওয়েবডেস্ক: গত বছরের নভেম্বরে চিনের উহান প্রদেশে প্রথম দেখা মিলেছিল করোনা ভাইরাসের। তারপর পেরিয়ে গেছে একটা গোটা বছর। সেই থেকে এখন পর্যন্ত বিশ্ব জুড়ে এই মারণ ভাইরাসের দাপট প্রাণ কেড়েছে বহু মানুষের। শুধু তাই নয়, মানুষের দৈনন্দিন জীবনের স্বাভাবিক ছন্দকেই এলোমেলো করে দিয়েছে করোনা ভাইরাস। ভাইরাসের প্রতিষেধক টিকা আবিষ্কারের চেষ্টায় নেমেছেন বিশ্বের তাবড় বিজ্ঞানীরা, কিন্তু এখনও পর্যন্ত বাজারে আসেনি কোনো টিকাই।

করোনা ভাইরাসের এই বিভীষিকার মাঝেই এবার এক উদ্বেগজনক পরিসংখ্যান সামনে আনল কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রক। জানা গেছে, এখনও পর্যন্ত ভারতের করোনা আক্রান্তদের মধ্যে পুরুষের সংখ্যাই সবচেয়ে বেশি। মোট মৃতের প্রায় ৭০ শতাংশই পুরুষ। এই নতুন পরিসংখ্যান নিঃসন্দেহে উদ্বেগ বাড়িয়েছে দেশ জুড়ে।

মঙ্গলবার একটি সাংবাদিক বৈঠকে এই নতুন তথ্য জানানো হয় কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রকের তরফে। জানা গেছে, ভারতে করোনা আক্রান্তের সংখ্যাটা ইতিমধ্যে ১ কোটি ছাড়িয়েছে। আর এই ভাইরাসের থাবায় এখনও পর্যন্ত মৃত্যু হয়েছে ১ লক্ষ ৪৭ হাজার মানুষের। এই মৃতদের মধ্যেই ৭০ শতাংশ পুরুষ বলে জানিয়েছে স্বাস্থ্য মন্ত্রক। এদিন কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য সচিব রাজেশ ভূষণ জানিয়েছেন, “ভারতে কোভিডে মৃত্যুর ৭০ শতাংশই পুরুষ। ৬০ বছরের কম বয়সীদের মধ্যে মৃত্যু হয়েছে ৪৫ শতাংশের।

এখানেই শেষ নয়, করোনা ভাইরাসে মৃত্যুর পাশাপাশি আক্রান্তের সংখ্যাতেও এগিয়ে পুরুষরা। রাজেশ ভূষণের কথায়, “দেশে মোট করোনা আক্রান্তের ৬৩ শতাংশ পুরুষ। আর তার মধ্যে ১৮ থেকে ৪৪ বছর বয়সীদের মধ্যে আক্রান্তের সংখ্যা ৫২ শতাংশ। যদিও এই বয়স সীমার মধ্যে মাত্র ১১ শতাংশের মৃত্যু হয়েছে।”

তবে ভারতের করোনা পরিস্থিতি যে বিশ্বের অন্যান্য দেশের তুলনায় অনেকটাই স্বস্তির, এদিন সে কথাও জানিয়েছে কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রক। জানা গেছে, ভারতে প্রতি ১০ লাখ জনসংখ্যায় দৈনিক মৃত্যুর সংখ্যা এই মুহূর্তে ৩০০ জন। বিশ্বে এটাই আপাতত সবচেয়ে কম।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, ভারতে করোনার নতুন স্ট্রেন ইতিমধ্যে নতুন করে উদ্বেগ বাড়িয়েছে। ব্রিটেন ফেরত ৬ জন যাত্রীর শরীরে পাওয়া গেছে ব্রিটেনের করোনা স্ট্রেন। এই সংক্রমণ রুখতে কড়া ব্যবস্থা নিয়েছে কেন্দ্র। ব্রিটেন ফেরত সমস্ত যাত্রীর মিউট্যান্ট করোনা টেস্ট করানোর কথা বলা হয়েছে। এই নতুন স্ট্রেন সম্পর্কে এখনও পর্যন্ত বিশেষ কিছু জানতে পারেননি চিকিৎসা বিজ্ঞানীরা। ফলে এ থেকে নতুন করে আতঙ্কের সৃষ্টি হয়েছে।

Tags

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close
Close