fff
ভাইরাল

বাংলার মিলখা! ৬ দিনে হাওড়া থেকে দৌড়ে দার্জিলিঙে ডোমজুরের রাজকুমার

মহানগর বার্তা ওয়েব ডেস্ক: অবশেষে লক্ষ্য পূরণ বঙ্গসন্তানের ছ’দিনে এক স্বপ্নের দৌড় পূর্ণ করল বাংলার রাজকুমার। হাওড়া ব্রিজ থেকে দৌড়ে পৌঁছালো দার্জিলিং। ছ’দিনে প্রায় ৭০০ কিলোমিটার পথ দৌড়ে নজির স্থাপন করলেন হাওড়ার ডোমজুড়ের বছর কুড়ির তরুণ রাজকুমার গৌর। এই ঘটনায় প্রমানিত যে শুধুমাত্র ইচ্ছাশক্তির জোরে ‘অসাধ্য সাধন’ করা যায়। তবে এটি তাঁর মূল লক্ষ্য পূরণের প্রাথমিক ধাপ বলা যেতে পারে। তিনি দৌড়ে এমন রেকর্ড করতে চান, যাতে গিনেস বুকে তাঁর নাম ওঠে। ভারতের উত্তর থেকে দক্ষিণ প্রান্ত পর্যন্ত দৌড়ে সেই রেকর্ড করতে চান তিনি। সেই কৃতিত্বের জোরে একদিন ভারতীয় সেনাবাহিনীতে চাকরির স্বপ্ন দেখেন রাজকুমার।

বাবা, মা আর বোনকে নিয়ে অভাবের সংসার তাঁর। বাবা পেশায় ১০০ দিনের কাজের কর্মী। এক চিলতে ঘরে কোনওমতে মাথা গুঁজে থাকেন পরিবারের চার সদস্য। ছোটবেলা থেকেই মার্শাল আর্ট পছন্দ রাজকুমারের। এই বয়সেই ক্যারাটে প্রশিক্ষক হিসেবে এলাকায় সুখ্যাতি অর্জন করেছেন। ঠিক কীভাবে বা কী করলে গিনেস বুক অব ওয়ার্ল্ড রেকর্ডসে নাম তোলা যায়, সে বিষয়ে স্পষ্ট ধারণা নেই তাঁর। শুধু জানেন, অক্লান্ত পরিশ্রমে এমন কিছু অর্জন করতে হবে, বিশ্বজুড়ে যার আর তুলনা পাওয়া যাবে না। গত ২৯ জুন সকালে তিনি বড়বাজার থেকে দার্জিলিংয়ের উদ্দেশে দৌড় শুরু করেন। ছ’দিন পর, ৪ জুলাই রাতে তিনি দার্জিলিং পৌঁছন। যাত্রাপথ মোটেও সহজ ছিল না। নবদ্বীপ, বহরমপুর, ফরাক্কা, কিষাণগঞ্জ বা শিলিগুড়ি—কোথাও রাত কেটেছে স্টেশনে, কোথাও ঠাঁই হয়েছে ফুটপাতে। বৃষ্টিতে অনর্গল ভিজে যাওয়ার কারণে শিলিগুড়ি পৌঁছে জ্বরে পড়েন। তাতে দৌড়ের গতি কমেছে। বলেন, অভাবের সংসারেও তো মানুষ স্বপ্ন দেখে। আমিও তাই গিনেস বুকে নাম তোলার লক্ষ্য নিয়ে পরিশ্রম করি। সেনাবাহিনীতেও যোগ দিতে চাই। প্রসঙ্গত, এর আগে তিনদিনেরও কম সময়ে কলকাতা থেকে তারাপীঠ দৌড়ে গিয়েছিলেন রাজকুমার।

 

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button
Close
Close

Adblock Detected

Please Disable your ADBlocker!