দেশ

“রামের অস্তিত্বকে যারা প্রশ্ন করেছিল তাঁদের ভুলবেন না”,ফের বিরোধীদের কটাক্ষ প্রধানমন্ত্রীর

মহানগরবার্তা ওয়েবডেস্ক: বিহারের বিধানসভা নির্বাচনের আবহে রাম মন্দির নির্মাণে কেন্দ্র সরকারের সাফল্যকেই ফের হাতিয়ার করতে চাইছে বিজেপি। অন্তত বিহারের নির্বাচনী প্রচারে গিয়ে প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্য সে কথাই প্রমাণ করেছে। রাম মন্দির নিয়ে বিরোধীরা যে নির্বাচারে জনগণের কাছে মিথ্যা প্রচার চালিয়েছিল সে কথাও বলেন তিনি।

রবিবার বিহারের পশ্চিম চম্পারণে নির্বাচনী জনসভা করতে গিয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। ওই রাজ্যে দ্বিতীয় দফার ভোট গ্রহণের আগে এখন জোর কদমে চলছে শেষ লগ্নের প্রচারপর্ব। সেই প্রচারেই এদিন আরো একবার প্রধানমন্ত্রী তুলে এনেছেন রাম মন্দিরের প্রসঙ্গ। এদিন বিহারের প্রচারে প্রথম থেকেই বিরোধীদের প্রতি আক্রমণাত্মক ছিলেন নরেন্দ্র মোদী।

এদিন মহাগঠবন্ধনের মুখ্যমন্ত্রী পদপ্রার্থী তেজস্বী যাদবকে কটাক্ষ করে বলেন তিনি, ‘প্রত্যেকটি জায়গায় গিয়ে নিষ্পাপ মুখ করে মিথ্যে কথা বলছে বিরোধীরা। নিজেদের স্বার্থ মেটানোর জন্যে তথ্যে বিকৃতি করছে। কিন্তু, চম্পারণের মানুষ তাদের মিথ্যে কথায় কখনই ভুলবে না। কারণ, আত্মনির্ভর বিহার গড়ে তোলার ক্ষেত্রে চম্পারণ বরাবরই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছে। এখানে বাপু ও জয়প্রকাশ নারায়ণের গৌরবময় ইতিহাস লেখা হয়েছে। বাজপেয়ী সরকারের সময় জোট শরিক থাকাকালীন এখানকার থারু উপজাতির জন্য প্রচুর কাজ করেছিলেন নীতীশ কুমার।’

এরপরই তাঁর বক্তব্যে রাম মন্দির ইস্যুকে তুলে আনেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, “এখন রাম মন্দির তৈরির কাজ শুরু হয়েছে। কিন্তু, যারা রামের অস্তিত্ব নিয়ে প্রশ্ন তুলেছিল তাদের কোনওদিন ভুলবেন না। তাদের কাছে যেমন এই বিষয়ে কোনও তথ্য নেই তেমনি নেই সঠিক যুক্তি। তারা শুধুমাত্র রাজনীতির জন্যই সবকিছুর বিরোধিতা করতে চায়। আতঙ্ক ও গুজব ছড়ায়।” এখানেই শেষ নয়, তিনি আরো বলেন, “ওরা (বিরোধীরা) বলেছিল এনডিএ তফশিলি জাতি ও উপজাতিদের সংরক্ষণ তুলে দেবে। কিন্তু, সেখানে এনডিএ সরকার ১০ বছরের জন্য সংরক্ষণের মেয়াদ বাড়িয়ে দিয়েছে।’

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, আগামী ৩রা নভেম্বর বিহারে দ্বিতীয় দফার ভোটগ্রহণ হবে। তার আগে রবিবারই ছিল নির্বাচনী প্রচারের শেষদিন। জনতা দল পার্টির নেতা এবং মুখ্যমন্ত্রী পদপ্রার্থী নীতিশ কুমারের উন্নয়নমূলক কাজের চেয়ে রাম মন্দির ইস্যুতেই যে আস্থা রাখছে বিজেপি, সেকথাই যেন আরো একবার পরিষ্কার হয়েছে প্রধানমন্ত্রীর রবিবারের কথায়।

Tags

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close
Close