খবররাজ্য

বিজেপির ‘উস্কানিতেই’ ঝামেলা হয়েছে, মোমিনপুরের ঘটনায় দাবি CPIML-এর

মহানগর বার্তা ডেস্ক: কলকাতার মোমিনপুর একবালপুর উত্তেজনার ঘটনাস্থলে এবার সিপিআইএমএল লিবারেশনের প্রতিনিধি দল। চার জনের একটি দল বৃহস্পতিবার ওই এলাকায় যান। সিপিআইএমএলের ওই প্রতিনিধি দলে ছিলেন অমলেন্দু ভূষণ চৌধুরী, চন্দ্রাস্মিতা চৌধুরী, বাবুন চ্যাটার্জী ও মধুরিমা বক্সী। তাঁরা এদিন ময়ূরভঞ্জ এলাকা পরিদর্শন করেন। কথা বলেন স্থানীয়দের সঙ্গে। তবে ১৪৪ ধারা জারি থাকায় ওই উত্তেজনার ঘটনার অকুস্থল ডোম পাড়া এলাকায় যেতে পারেননি তাঁরা।

পরিদর্শন নিয়ে সিপিআইএমএল লিবারেশনের রাজ্য কমিটির সদস্যা চন্দ্রাস্মিতা চৌধুরী মহানগর বার্তাকে জানান, “আমরা গিয়ে ওই অঞ্চলের সাধারণ মানুষের সঙ্গে কথা বলেছি। তাঁরা যেটা বলছেন, তা হল এইরকম ঘটনা আগে তাঁরা দেখেননি ওই অঞ্চলে। কিছুদিন আগেই ওই এলাকায় দুর্গাপুজো পালন হয়েছে তখন কোনও সমস্যা হয়নি। এখনই কেন, এর পিছনে বড় চক্রান্ত এবং বিজেপির একটা উস্কানি আছে বলে আমরা মনে করি।”

ঠিক কী ঘটেছিল সেদিন? চন্দ্রাস্মিতার কথায়, ”আমরা জেনেছি সেদিন মানে লক্ষ্মীপুজোর দিন ওই অঞ্চলের ডোমপাড়া এলাকা। যেখানে মাত্র ৩-৪ ঘর মুসলিম সম্প্রদায়ের মানুষের বাস। সেখানে একটি নির্মীয়মান বাড়িতে ধর্মীয় পতাকা লাগানো ঘিরে ঝামেলার সূত্রপাত। ওই পতাকা কেন লাগিয়েছে, একথা বলে পাল্টা গেরুয়া পতাকা লাগানো হয়। তাই নিয়েই উত্তেজনা।” ওই অঞ্চলে ঢুকতে পারেননি বিজেপি-র রাজ্য সভাপতি সুকান্ত মজুমদার। কিন্তু যেতে পেরেছে সিপিআইএমএল-র প্রতিনিধি দল! প্রশ্নের জবাবে নেত্রী জানান, “না আমরা কেন্দ্রস্থলে যায়নি। আর বাধা দেবে না কেন ওঁকে? ওঁ (সুকান্ত মজুমদার) গিয়ে কী করবেন? উস্কানি দেবেন!”

ইতিমধ্যেই মোমিনপুরের ঘটনা নিয়ে উত্তপ্ত হয়েছে রাজ্য রাজনীতি। কেন্দ্রকে চিঠি লিখেছেন শুভেন্দু অধিকারী। সম্প্রদায়িক দাঙ্গার অভিযোগ করা হয়েছে বিজেপি-র তরফে। ঠিক এই পরিস্থিতিতে দাঁড়িয়ে সিপিআইএমএল-র প্রতিনিধি দলের ওই স্থানে যাওয়া তাৎপর্যপূর্ণ বলেই দাবি রাজনৈতিক মহলের একাংশের।

Tags

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button
নিজের লেখা নিজে লিখুন
Close
Close