রাজ্যরাজনীতি

“বেলুন ফুটো, গুরুত্ব দেওয়ার দরকার নেই”, নবান্ন অভিযান হেলায় ওড়ালেন মুখ্যমন্ত্রী

মহানগর বার্তা ডেস্ক : আজ বিজেপির নবান্ন অভিযান ঘিরে নানা জায়গায় বিক্ষোভের ছবি ধরা পড়েছে। আর সেই অভিযানকে একেবারেই গুরুত্বহীন বলে মনে করছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এদিন তিনি বলেন, “বিজেপির নবান্ন অভিযানে লোক হয়নি। বেলুন ফুটো হয়ে গেছে, গুরুত্ব দেওয়ার দরকার নেই।” খড়গপুরে ২ মেদিনীপুর জেলা নেতৃত্বের বৈঠক করেন মমতা। আর সেখানেই থেকেই এমন মন্তব্য করলেন তিনি।

বিজেপির নবান্ন অভিযান ঘিরে তুলকালাম। অভিযান রুখতে পুলিশে ছয়লাপ গোটা কলকাতায়। বিজেপি সমর্থকরা পুলিশকে লক্ষ্য করে ইট, পাথর, বাঁশ ছোড়েন। ভেঙে চুরমার করে দেওয়া হয় পুলিশের কিয়স্ক। বিজেপির মিছিল ছত্রভঙ্গ করতে কাঁদানে গ্যাস ব্যবহার করে পুলিশ। রীতিমতো খণ্ডযুদ্ধ বেঁধে যায় হাওড়া-ময়দান থেকে শুরু করে লালবাজারে। মহাত্মা গান্ধী রোডে পুলিশের গাড়িতে পেট্রোল জ্বেলে আগুল ধরিয়ে দেন বিজেপি কর্মীরা। ঘটনাস্থলে আসে দমকলবাহিনী। এই অভিযানে আহত হয়েছেন এক তৃণমুল নেতাও। তমলুক টোল প্লাজা এলাকায় তৃণমূল প্রধানকে মাটিতে ফেলে লাথি, মাথায় লাঠির বাড়ি, মুখে ঘুঁসি। হাসপাতালে ভর্তি তৃণমূল প্রধান। এদিন তাঁর খোঁজ নেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। জখম নেতার বাড়িতে গিয়ে তাঁর খোঁজ নিতে বলেন নেত্রী।

প্রসঙ্গত, মোট ৪ দিনের মেদিনীপুর সফরে এসেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। ১৫ তারিখ বিকাল পর্যন্ত পশ্চিম মেদিনীপুর জেলার খড়গপুর ইন্ডাস্ট্রিয়াল পার্কেই মুখ্যমন্ত্রীর থাকার কথা রয়েছে। আজ পূর্ব মেদিনীপুরের জেলা পরিষদ গঠন নিয়ে বৈঠকও সারেন তিনি। সেই বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন পূর্ব মেদিনীপুরে জেলা পরিষদের কর্মধ্যক্ষ সহ এমএলএ ও মন্ত্রীরা। এরপর ১৪ তারিখ পূর্ব মেদিনীপুর তমলুকের নিমতৌড়িতে প্রশাসনিক সভা রয়েছে মুখ্যমন্ত্রীর। তারপর ১৫ তারিখ মেদিনীপুরের খড়গপুর শহরের ইন্ডাস্ট্রিয়াল পার্কের নির্মিতমান স্টেডিয়ামে হবে সরকারি অনুদান প্রদান সভা।পাশাপাশি পূর্ব ও পশ্চিম মেদিনীপুর, ঝাড়গ্রাম, বাঁকুড়া ও পুরুলিয়া এই পাঁচ জেলা নিয়ে হবে জব ফেয়ার। এই জব ফেয়ারে চাকরি পাওয়া প্রার্থীদের হাতে নিয়োগপত্র তুলে দেবেন মাননীয়া। ইতিমধ্যে মুখ্যমন্ত্রী সফর ঘিরে সাজ সাজ রব জেলায়। সূত্রের খবর, এবারে সমস্ত আনুষ্ঠানিক কাজকর্ম রেল শহর খড়গপুরেই সারবেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button
নিজের লেখা নিজে লিখুন
Close
Close