দেশ

২০২২- এর আগে সাধারণ মানুষের কাছে ভ্যাকসিন নয়, সাফ জানালো এইমস

মহানগরবার্তা ওয়েবডেস্ক: করোনা ভাইরাসের টিকা আবিষ্কার নিয়ে যতই মাতামাতি চলুক রাশিয়া চিন আমেরিকা কিংবা অন্যান্য দেশ গুলিতে, আদতে টিকার প্রয়োগ এখনই সম্ভব নয়, সাফ জানিয়ে দিল অল ইন্ডিয়া ইন্সটিটিউট অফ মেডিকেল সায়েন্স (AIIMS) বা এইমস। বস্তুত, ২০২২ সালের আগে যে সাধারণ মানুষের কাছে করোনা টিকা পৌঁছে দেওয়ার সম্ভাবনা নেই সে কথাই স্পষ্ট করা হল এইমসের তরফ থেকে। শুধু তাই নয়, ভারতের বাজারে করোনার টিকা আসতে এখনও অন্তত বছর খানেক সময় লাগবে বলেই মন্তব্য করা হয়েছেএইমসের তরফে।

রবিবার সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যম CNN-News 18-কে দেওয়া একটি সাক্ষাৎকারে এইমসের ডিরেক্টর ডক্টর রণদীপ গুলেরিয়া জানান করোনা টিকা বাজারে আসতে এক বছরের বেশি সময় লাগবে। “আমাদের মতো বিপুল জনসংখ্যার দেশে সাধারণ ফ্লু ভ্যাকসিনের মতো এই ভ্যাকসিনও বাজারে কিনতে পাওয়া যেতে অনেক সময় লাগবে”, বলেন তিনি। বাজারে করোনা ভাইরাসের ভ্যাকসিন পাওয়া গেলে তারপর ভারতের পরিস্থিতি কেমন হবে তা নিয়ে মন্তব্য করতে গিয়ে রণদীপ গুলেরিয়া জানান, “পর্যাপ্ত পরিমাণে সিরিঞ্জ, সূঁচের ব্যবস্থা করতে হবে। তাছাড়া, সেসব ভারতবর্ষের প্রত্যন্ত অঞ্চলগুলি পর্যন্ত পৌঁছে দিতে হবে। এটাই সবথেকে বড় চ্যালেঞ্জ।”

এরপর অন্য এক সম্ভাবনার কথাও বলেন করোনা ভাইরাস ম্যানেজমেন্টের জাতীয় টাস্কফোর্সের সদস্য রণদীপ গুলেরিয়া। একটি করোনা ভ্যাকসিন বাজারে আসার পর যদি পরে আরো অন্য কোনো ভ্যাকসিন আসে যা তুলনামূলক বেশি কার্যকরী, তখন কিভাবে তার বন্টন করা হবে? তখনকার পরিস্থিতি মোকাবিলা করাটা আরো বড় চ্যালেঞ্জ হতে চলেছে, জানান তিনি।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, শুক্রবারই বিশ্বের দরবারে ভারত জানিয়েছে নিজের সর্বশক্তি দিয়ে করোনা ভাইরাসের ভ্যাকসিন উৎপাদনে ভরত সহয়তা করবে। এভাবে করোনার বিরুদ্ধে লড়াইয়ে মানবতার দৃষ্টান্ত স্থাপন করবে ভারত। একটি আন্তর্জাতিক সম্মেলনে এমনটাই জানিয়েছেন ভারতের ফরেন সেক্রেটারি হর্ষবর্ধন শৃঙ্গলা।

Tags

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close
Close