রাজ্য

‘ক্লাবগুলিকে অনুদানের সিদ্ধান্ত সঠিক’, রাজ্য সরকারকে সমর্থন নোবেলজয়ী অভিজিতের

মহানগরবার্তা ওয়েবডেস্ক: করোনা আবহে দুর্গাপুজো আয়োজনের জন্য পুজো কমিটি গুলিকে সরকারি অনুদান দেওয়া নিয়ে ইতিমধ্যে নানা মহলে তৈরি হয়েছে বিতর্ক। কিন্তু তার মাঝেই এই পদক্ষেপকে সমর্থন করলেন অভিজিৎ বিনায়ক বন্দ্যোপাধ্যায়। নোবেলজয়ী এই অর্থনীতিবিদের মতে পশ্চিমবঙ্গ সরকারের এই উদ্যোগ প্রশংসনীয়।

 

করোনা ভাইরাস সংক্রমণের পরিস্থিতির মধ্যেই রাজ্যের দুর্গাপুজো আয়োজনকারী কমিটিগুলিকে ৫০,০০০ টাকার অনুদান দিয়েছে পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় পরিচালিত সরকার। সরকারের এই উদ্যোগকে সমর্থনের কারণ হিসেবে অভিজিৎ বিনায়ক বন্দ্যোপাধ্যায় জানিয়েছেন, এ বছরের পরিস্থিতি সম্পূর্ণ আলাদা। ভাইরাস পরিস্থিতি মোকাবিলা করার জন্য পুজো উদ্যোক্তাদের একাধিক নিয়মবিধি মানতে হবে। প্রত্যেক মন্ডপে সুরক্ষিত প্রটোকল মেনে কাজ করতে হবে। সেই কারণে বাড়তি খরচ হবে পুজো কমিটিগুলির। তাই স্বাভাবিকভাবেই রাজ্য সরকারের অনুদান কাজে লাগবে। রাজ্য সরকার অনুদান হিসেবে পুজো কমিটিগুলিকে যে টাকা দেবে, সেই টাকায় সবরকম বাড়তি খরচ করতে পারবে পুজো উদ্যোক্তারা।

 

বস্তুত, করোনা পরিস্থিতিতে চারিদিকে দেখা দিয়েছে অর্থনৈতিক সংকট।লকডাউনে কাজ হারিয়ে বেকার হয়েছেন বহু মানুষ।রাজ্যে মোট ৩৬হাজার ৯৪৬টি পুজো কমিউনিটি রয়েছে। মহামারীর মধ্যে পুজোর জন্য ক্লাবগুলিকে বিপুল অনুদান দেওয়া নিয়ে সমালোচনার ঝড় তুলেছেন বিরোধিরা। এমতাবস্থায় পুজো কমিটিগুলিকে অর্থনৈতিক অনুদান কি আদেও প্রয়োজনীয় ছিল? প্রশ্ন তুলেছেন বিরোধী দলগুলি। বস্তুত এবছর রাজ্যে দুর্গোৎসবের অনুমতি দেওয়া নিয়েই তৃণমূল সরকারের বিরোধিতায় সরব হয়েছিলেন অনেকে। কিন্তু নোবেলজয়ী অর্থনীতিবিদের সমর্থন নিঃসন্দেহে আলাদা তাৎপর্য যোগ করেছে সরকারের এই সিদ্ধান্তে।

 

প্রসঙ্গত, সমস্ত রকম নিয়ম কানুন স্বাস্থ্য বিধি মেনেই দুর্গাপুজোর অায়োজন করার নির্দেশ দিয়েছে সরকার। এমনকি সরকারের তরফ থেকে প্রকাশ করা হয়েছে গাইডলাইনও। কিন্তু করোনা পরিস্থিতিতে ভিড় নিয়ন্ত্রণ নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছিলেন চিকিৎসক মহলেও একাংশ। সব দিক বিবেচনা করে এবছর দর্শক শূন্য মন্ডপে পুজো করার রায় ঘোষণা করেছে হাইকোর্ট।

Tags

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close
Close