রাজ্য

মন্ত্রীত্বর সাথে এবার চেয়ারম্যানও, মেয়ের চাকরি যাওয়ার পরেও নতুন পদ পেলেন পরেশ

মহানগরবার্তা ওয়েবডেস্কঃ পরেশের মুকুটে নয়া পালক! শিক্ষা প্রতিমন্ত্রীর পাশাপাশি রাজ্যের গ্রামীন হাসপাতাল এর চেয়ারপার্সন এর পদে উপনিত হলেন, এসএসসি দুর্নীতি মামলায় যুক্ত রাজ্যের মন্ত্রী পরেশ অধিকারী৷ শুক্রবার ২১৮টি গ্রামীণ হাসপাতালের রোগীকল্যাণ সমিতির চেয়ারপার্সনদের তালিকা প্রকাশ করে স্বাস্থ্য দফতর। সেই তালিকায় দেখা যায় কোচবিহারের হলদিবাড়ি গ্রামীণ হাসপাতাল এর রোগী কল্যান সমিতির চেয়ারম্যান হয়েছেন মন্ত্রী পরেশ অধিকারী।

বিগত মাসেই কলকাতা উচ্চ আদালতের নির্দেশে শিক্ষিকার চাকরি যায় পরেশ কন্যা অঙ্কিতা অধিকারীর। পাশাপাশি পারিশ্রমিকের অর্থ দুটি কিস্তি তে ফেরত দেওয়ার নির্দেশও দেওয়া হয় তাঁকে৷ দুর্নীতি তে নাম জড়ানোর পরেও কেন তাকে মন্ত্রীত্বে বহাল রাখা নিয়ে,তা নিয়ে নৈতিকতার প্রশ্ন তোলে বিরোধী শিবির৷ তারপরেও কিভাবে তার ক্ষমতা বৃদ্ধি হল বিরোধীদের কাছে সেটাই এখন সবচেয়ে বড় প্রশ্ন।

স্বাস্থ্য দফতর এর তরফে, প্রকাশিত গ্রামীণ হাসপাতালের রোগীকল্যাণ সমিতির চেয়ারপার্সনদের তালিকায় পরেশ অধিকারীর পাশাপাশি নাম রয়েছে, শত্রুঘ্ন সিনহা, মিমি চক্রবর্তী ও শতাব্দী রায় এর। তালিকায় দেখা গেছে, পশ্চিম বর্ধমানের বল্লভপুর গ্রামীণ হাসপাতালের রোগীকল্যাণ সমিতির চেয়ারপার্সন হয়েছেন সাংসদ শত্রুঘ্ন সিনহা। বীরভূমের দুবরাজপুর গ্রামীণ হাসপাতালের এবং নাকরাকোন্ডা গ্রামীণ হাসপাতালের চেয়ারপার্সন হয়েছেন শতাব্দী রায়। দক্ষিণ ২৪ পরগণা নলমুড়ি গ্রামীণ হাসপাতালের রোগীকল্যাণ সমিতির চেয়ারপার্সন হয়েছেন সাংসদ মিমি চক্রবর্তী। স্বাস্থ্য অধিকর্তার দাবি, হাসপাতাল এর পরিষেবার মান বৃদ্ধির স্বার্থেই এমন পদক্ষেপ গ্রহন করা হয়েছে।

অন্যদিকে, নির্মল মাজিকে মেডিক্যাল কলেজের রোগী কল্যাণ সমিতির চেয়ারম্যান পদ থেকে সরিয়ে দেওয়া হয়। তাঁর জায়গায় নতুন চেয়ারম্যান হন বিধায়ক সুদীপ্ত রায়। বর্তমানে নির্মল, আমতা এবং বৃন্দাবনপুর গ্রামীণ হাসপাতালের রোগী কল্যাণ সমিতির চেয়ারপার্সন।

Tags

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button
নিজের লেখা নিজে লিখুন
Close
Close