fff
রাজনীতি

মমতা সরিয়েছেন মন্ত্রীসভা থেকে, ফেসবুকে এখনও মন্ত্রী Partha Chatterjee!

মহানগর বার্তা ওয়েবডেস্ক: এসএসসি দুর্নীতিতে জড়িয়েছে পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের(Partha Chatterjee) নাম। বিরোধীরা এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে  তৃণমূলের বিরুদ্ধে সরব হয়েছে।  এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট (ইডি) গ্রেপ্তার করেছে প্রাক্তন মন্ত্রীকে। পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের বান্ধবী Arpita Mukherjee র টালিগঞ্জ এবং বেলঘরিয়ার দু’টি ফ্ল্যাট থেকে ইতিমধ্যেই প্রায় পঞ্চাশ কোটি টাকা উদ্ধার হয়েছে। এই ঘটনায় রাস্তায় নেমেছে সিপিএম বিজেপি সহ একাধিক বুদ্ধিজীবী। যার জেরে মুখ্যমন্ত্রীর Mamata Banerjee পদত্যাগের দাবিও জোরালো হয়েছে। তবে SSC-scam এ গ্রেপ্তার হওয়ার পরও পার্থ চট্টোপাধ্যায়(Partha Chatterjee) বহাল ছিলেন মন্ত্রীত্বে। এর ফলে ঘরে-বাইরে সমালোচনার ঝর উঠতে থাকে। শুধু বিরোধীরাই নয়, তৃণমূল নেতা কুণাল ঘোষ, দেবাংশু ভট্টাচার্যরাও সোচ্চার হন Social media তে। এরপর তৃণমূলের তরফে দ্রুত বৈঠক ডেকে পার্থ চট্টোপাধ্যায়কে(Partha Chatterjee) দল থেকে তদন্ত চলাকালীন সরানো হয়। মুখ্যমন্ত্রী Mamata Banerjee মন্ত্রীসভা থেকে বহিষ্কার করেন প্রাক্তন শিক্ষামন্ত্রী ( Partha Chatterjee) কে। এরপরও বির্তক থামেনি। বিরোধীদের তরফে অভিযোগ এই দুর্নীতির রেশ রয়েছে ‘কালীঘাট পর্যন্ত’।

মন্ত্রীসভা থেকে পার্থ চট্টোপাধ্যায়(Partha Chatterjee) বহিষ্কৃত হবার পর, এখনও তার নিজস্ব ফেসবুক ও ট্যুইটার অ্যাকাউন্টে জ্বলজ্বল করছে মন্ত্রীত্বের পরিচয়। নতুন করে বিতর্ক শুরু হয়েছে এই বিষয় প্রকাশ্যে আসার পরে। মন্ত্রীসভা থেকে বরখাস্ত হওয়ার পরেও কেন এখনও ফেসবুক বা ট্যুইটারে রয়ে গেছে মন্ত্রী হিসাবে পার্থ বাবুর (Partha Chatterjee) নাম? প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে রাজনৈতিক দলগুলোতে।

ছবিঃ পার্থর ফেসবুক পেজ

Partha Chatterjee ও তার বান্ধবী Arpita Mukherjee র গ্ৰেফতারির পর, তাদের আইনজীবী তরফে বিবৃতি দেওয়া হয়। আইনজীবী জানান, তাদের ২৪ ঘন্টা অন্তর স্বাস্থ্য পরীক্ষা করাতে হবে। ED র তরফে জানানো হয় Partha Chatterjee ও Arpita Mukherjee র স্বাহ্য পরীক্ষা হবে ৪৮ ঘন্টা অন্তর। Partha Chatterjee মন্ত্রীত্ব যাওয়ার পরেরদিন স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য জোকার ইএসআই হাসপাতালে নিয়ে আসে(ED)। সেখানেই সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে পার্থ বাবু জানান, তাঁর বিরুদ্ধে ‘ষড়যন্ত্র’ হচ্ছে। মন্ত্রীসভা থেকে তাঁকে বরখাস্তের কথা শুনে পার্থ বাবু জানান “ঠিক সিদ্ধান্ত”। কিন্তু দল থেকে তাঁকে বহিষ্কারের কথায় পার্থ বাবু জানান “সময় কথা বলবে”। তাঁর এই উক্তি স্বাভাবিকভাবেই ধোঁয়াশা তৈরি করে সব মহলে। এখনও ফেসবুক বা ট্যুইটারে মন্ত্রী হিসাবে তাঁর পরিচিতির সঙ্গে এই মন্তব্যের কোনো সম্পর্ক আছে কিনা সেটা নিয়েও সন্দীহান বিশেষজ্ঞ মহল।

ছবিঃ পার্থর টুইটার

কেন পার্থবাবুর নিজস্ব ফেসবুক বা ট্যুইটার অ্যাকাউন্টে বদল আনার উদ্যোগ নেওয়া হলোনা! তাঁর সামাজিক মাধ্যম দেখার দায়িত্বে যারা, তারাইবা কেন এই বিষয়ে উদ্যোগ গ্রহণ করলেন না! একের পর এক প্রশ্নের ভীড় জমছে বিশেষজ্ঞদের মধ্যে

অষ্টম শ্রেণীর পাঠ্য থেকেও বাদ যাচ্ছেনা পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের (partha chatterjee) নাম।

অষ্টম শ্রেণির ইতিহাসের পাঠ্য বইতেও নাম আছে পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের (Partha Chatterjee)। সেখানে এক জায়গায় সিঙ্গুর আন্দোলনের ইতিহাসে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের (Mamata Banerjee) সঙ্গেই, পার্থ বাবুর নামও উল্লেখ করা আছে। বিরোধীরা তোপ দাগতে শুরু করেছেন এই বিষয়েও। SSC- scam  অভিযুক্ত একজনের নাম পাঠ্য বইতে কীভাবে রয়েছে সেই নিয়েও বিতর্ক শুরু হয়েছে বিরোধী মহলে। তাদের দাবি অবিলম্বে পার্থ বাবুর নাম পাঠ্য বই থেকে বাদ দিতে হবে। কিন্তু সোমবার বিকাশ ভবনে, বর্তমান শিক্ষামন্ত্রী ব্রাত্য বসুকে পাশে নিয়ে পর্ষদের সিলেবাস কমিটির চেয়ারম্যান অভীক মজুমদার জানিয়ে দেন পার্থ বাবুর নাম বাদ দেওয়া হবেনা বই থেকে। কারণ হিসাবে তিনি জানান, তখন যে আন্দোলনে পার্থ বাবু ছিলেন, এটা ঐতিহাসিকভাবে প্রমাণিত সত্য। তাই তাঁর নাম বাদ দেওয়ার কোনো কারণ নেই।

কিন্তু বিরোধীদের অভিযোগ এইসব কাজের মাধ্যমে আদতে দুর্নীতির বিষয়টাকে লঘু করার চেষ্টা করছে শাসক দল। এসএসসি দুর্নীতিতে(SSC-scam) অভিযুক্ত হয়ে ইডি (ED) গ্রেপ্তার করলেও, মন্ত্রীসভা থেকে বরখাস্ত হওয়া কি এখনও মন থেকে মানতে পারছেন না পার্থ বাবু! তারই ফলে কি এখনও তাঁর ফেসবুক বা ট্যুইটার অ্যাকাউন্টে রয়ে গেছে, তাঁর মন্ত্রীত্বের পরিচয়! প্রশ্ন উঠছে বিরোধী মহলে

পার্থ বাবু Social Media তে তার পরিচয় পরিবর্তনের উদ্যোগ না নিলেও তৃণমূল এই বিষয়ে উদ্যোগ নেয়নি, সেই বিষয়েও সংশয় প্রকাশ করেছেন সংশ্লিষ্ট মহল। বিরোধীদের অভিযোগ, প্রথম থেকেই এই বিষয়কে ধামাচাপা দেওয়ার চেষ্টা করেছে শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেস। যার ফলে মন্ত্রীসভা থেকে বরখাস্ত বা দল থেকে নিলম্বনের সিদ্ধান্ত নিতেও বিলম্ব করে তারা। রাজ্যজুড়ে এসএসসি দুর্নীতি(SSC- scam) বিরোধী লড়াই জোরদার হলে, চাপের মুখে শাসক দল সিদ্ধান্ত নিতে বাধ্য হয়। তাদের দাবি শুধু পার্থ বাবু নন, আরো অনেকেই জড়িত এই দুর্নীতিতে। তাই প্রকাশ্যে পার্থ বাবুকে বরখাস্ত করলেও দেখালেও, আদতে তৃণমূল এই বিষয়ে যথেষ্ট কঠোর নয়।

ফেসবুক বা ট্যুইটারে পার্থ বাবুর মন্ত্রী পরিচয় মোছে কিনা সেদিকেই নজর এখন রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের। বিষয়টা প্রকাশ্যে আসার সঙ্গে সঙ্গেই বিভিন্ন মহলে তাই শুরু হয়েছে জল্পনা। রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের অনেকরই দাবি তদন্তের স্বার্থে এই বিষয়ে ইডি’র (ED) ভূমিকাও কাম্য। এখন দেখার পার্থ বাবুর ‘ষড়যন্ত্র’ অভিযোগ এবং তারপরের ঘটনাবলী বিষয়টিকে কোথায় নিয়ে দাঁড় করায়।

Tags

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button
Close
Close

Adblock Detected

Please Disable your ADBlocker!