মহানগররাজনীতিরাজ্য

“আমি ওদের বিশ্বাস করেছিলাম, শুধু সই করতাম”, সিবিআই জেরায় ইঙ্গিতপূর্ণ পার্থ

মহানগর বার্তা ডেস্ক :এসএসসি নিয়োগ দুর্নীতি মামলায় সিবিআই-এর জেরায় বিস্ফোরক দাবি করলেন পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের। এই মুহূর্তে নিয়োগ দুর্নীতি মামলায় সিবিআই হেফাজতে রয়েছেন প্রাক্তন মন্ত্রী। কার নির্দেশে অযোগ্য প্রার্থীদের চাকরি দেওয়া হয়েছিল? নামগুলো কীভাবে বাছাই করা হয়েছিল? কারা এই নামগুলো দিয়েছিল? কোনও প্রভাবশালী যোগ দেওয়া হয়েছিল কিনা এই প্রশ্নগুলো সিবিআই তদন্তকারী আধিকারিকদের তরফে জানতে চাওয়া হয়েছিল। আর তারপরেই প্রকাশ্যে আসে বিস্ফোরক তথ্য।

সিবিআই জেরায় পার্থ চট্টোপাধ্যায় চাঞ্চল্যকর দাবি করেন। তিনি বলেন, ‘ডিপার্টমেন্ট থেকে ফাইল আসত। আমি শুধু সই করতাম। ‘ এক্ষেত্রে তাঁর ক্ষমতা খুবই সীমিত ছিল বলেও দাবি করেছেন প্রাক্তন শিক্ষামন্ত্রী৷ দফতরের আধিকারিকদের তিনি ভরসা করে ভুল করেছেন, এমন কথাও শোনা গিয়েছে পার্থর মুখে৷ সূত্রের দাবি অনুযায়ী, জেরায় পার্থ সিবিআই কর্তাদের বলেন, ‘আই রিলায়েড অন দেম (আমি দফতরের আধিকারিকদের উপরে ভরসা করেছিলাম)৷’ অর্থাৎ পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের কথায় স্পষ্ট ইঙ্গিত, তিনি গোটা দুর্নীতির দায়টা শিক্ষা দফতরের উপর-ই চাপাচ্ছেন। দফতরের আধিকারিকদের দিকেই অভিযোগের আঙুল তুলছেন।

ফলে স্বভাবতই প্রশ্ন উঠেছে, দফতরের আধিকারিকরা দুর্নীতি করছেন, তা কি জানতেন না পার্থ? অন্য কারও নির্দেশে কি তবে আধিকারিকরা দুর্নীতি করার সাহস পেয়েছিলেন। নাকি পার্থর নির্দেশেই সব হত, এখন তদন্তকারীদের বিভ্রান্ত করার জন্য এই কথা বলছেন প্রাক্তন শিক্ষামন্ত্রী? এদিকে জানা গিয়েছে, টাকার লেনদেন ও প্রভাবশালী যোগের সন্ধান পেতে প্রাক্তন শিক্ষামন্ত্রী ও মধ্যশিক্ষা পর্ষদের প্রাক্তন সভাপতিকে আলাদা আলাদা ভাবে জেরা করা হয়।

এই মুহূ্র্তে পার্থ চট্টোপাধ্যায় ছাড়াও মধ্যশিক্ষা পর্ষদের প্রাক্তন সভাপতি কল্যাণময় গঙ্গোপাধ্যায় এবং এসএসসি-র আর এক প্রাক্তন উপদেষ্টা এস পি সিনহা সিবিআই হেফাজতে রয়েছেন৷ তিন জনকেই দফায় দফায় জেরা করছেন সিবিআই আধিকারিকরা৷ আর সেই জেরা চলাকালীনই পার্থ চট্টোপাধ্যায় নিয়োগের ক্ষেত্রে বেনিয়মের দায় শিক্ষা দফতরের আধিকারিকরদের উপরেই চাপিয়েছেন বলে সূত্রের খবর৷

Tags

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button
নিজের লেখা নিজে লিখুন
Close
Close