খবররাজ্য

এক মাস আগে বিজেপি ছেড়েছে, নীতিশ কুমার এখনও বিশ্বাসযোগ্য নয়: পিকে

মহানগর বার্তা ডেস্ক: সম্প্রতি নীতিশ কুমার বিহারে বিজেপির সঙ্গ ছেড়েছেন। বর্তমানে আরজেডি, কংগ্রেস আর বামেদের মহাজোটে অংশ নিয়েছেন তিনি। নীতিশের এরূপ ভোল বদলকে কটাক্ষ করেছেন প্রাক্তন জেডিইউ নেতা তথা ভোটকুশলী প্রশান্ত কিশোর। আর এই কটাক্ষকে ঘিরেই বিতর্কের সূত্রপাত। শনিবার ভোটকুশলী প্রশান্ত কিশোর বলেছেন যে, বিহারের মুখ্যমন্ত্রী নীতিশ কুমারের কথাকে কেউই গুরুত্ব সহকারে নেয় না।

আসন্ন ২০২৪ লোকসভা নির্বাচনের সাথে নীতিশ কুমারের প্রসঙ্গ তুলে পিকে বলেন, “কে তাঁর কথা গুরুত্বপূর্ণ বলে মনে করবে? তিনি মাত্র এক মাস আগে বিজেপি ছেড়েছেন এবং এখন বিজেপির বিরোধী নেতা এবং দলগুলির সাথে দেখা করছেন। কিন্তু এসব করলে বিশেষ একটা পার্থক্য হবে না। আমাদের জনগণের বিশ্বাস, কর্মক্ষেত্র এবং গণ আন্দোলনের কৌশলের জন্য একটি বিশ্বাসযোগ্য মুখ দরকার। এছাড়াও তিনি কটাক্ষের সুরে বলেন, “আমরা বিহারে অনেক বড় বড় জোট তৈরি হতে এবং ভাঙতে দেখেছি। শুধুমাত্র একটি যোগসূত্র রয়েছে যা কোনো জোট ভাঙতে পারে না, তা হল মুখ্যমন্ত্রীর চেয়ার এবং নীতিশ কুমার। ফেভিকল তাকেই তাদের ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসেডর বানিয়ে দিতে পারে।”

কিছুদিন আগেই নীতিশ ও মোদীর ছবির একটি কোলাজ পোস্ট করতে দেখা যায় প্রশান্ত কিশোরকে। যদিও ট্যুইট করার মুহূর্তের মধ্যেই সেটি ডিলিটও করে দেন। মোদীর সাথে নীতিশ কুমারের যে সখ্যতা রয়েছে তা তুলে ধরার জন্যই তিনি এই ট্যুইটটি করেছিলেন। যদিও এই দায় প্রশান্ত কিশোরের উপরেই চাপান নীতিশ। বিহারের মুখ্যমন্ত্রীর পাল্টা দাবি করেন, প্রশান্ত কিশোর নিজেই পাবলিসিটি স্টান্ট করছেন৷ হতে পারে প্রশান্ত কিশোর নিজেই তলায় তলায় বিজেপির হয়ে কাজ করছেন৷

প্রসঙ্গত, কিশোর আর নীতিশের বাকবিতন্ডা জাতীয় রাজনীতিতে সর্বজনবিদিত। প্রশান্ত কিশোরকে ২০২০ সালে জেডি(ইউ) থেকে বরখাস্ত করা হয়েছিল। কয়েক মাস আগে, তিনি ঘোষণা করেছিলেন যে তিনি প্রাথমিকভাবে বিহারে মনোনিবেশ করবেন। তিনি আরও বলেছিলেন যে, নীতীশ কুমারের বিজেপির সঙ্গ ত্যাগ আঞ্চলিক রাজনীতিতে প্রভাব ফেললেও জাতীয় রাজনীতির ক্ষেত্রে তেমন কোনও প্রভাব ফেলতে পারবে না। গত কয়েকদিনে কিশোর আর নীতিশের বাদানুবাদে সরগরম জাতীয় রাজনীতি। যদিও, পিকে আবার বলেছেন, “নীতিশ আমার উপর রাগান্বিত নন, এটা তার কথা বলার ধরন। ওর সাথে আমার ভালো সম্পর্ক রয়েছে।”

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button
নিজের লেখা নিজে লিখুন
Close
Close