দেশ

“শান্তির ভাষা না বুঝলে যোগ্য জবাব দেবে ভারত”, দিওয়ালির দিন পাকিস্তানকে কড়া বার্তা মোদীর

মহানগরবার্তা ওয়েবডেস্ক: প্রতিবারের মতো এবছরও সীমান্ত অঞ্চলের সেনাদের সঙ্গে দিওয়ালির উৎসব পালন করছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। ভারতের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শপথ নেওয়ার পর থেকে প্রতিবছরই এই পরম্পরা অনুসরণ করেছেন তিনি। কখনো সিয়াচেন, কখনো রাজৌরি কখনো ডোকরা, এক এক বছর এক এক জায়গায় গিয়ে সেনা জওয়ানদের সঙ্গে দিওয়ালি উদযাপন করেন তিনি। সেই ধারা বজায় রেখেই এবছর তিনি পৌঁছে গেছেন রাজস্থানের জয়সলমীরে। আর সেখান থেকেই দিওয়ালির দিন পাকিস্তানকে কড়া বার্তাও দিলেন প্রধানমন্ত্রী।

শনিবার জয়সলমীরের লোগেবালা অঞ্চল থেকে সেনাদের উদ্দেশ্যে দিওয়ালির বার্তায় পাকিস্তানকে হুঁশিয়ারি দিয়েছেন নরেন্দ্র মোদী। ২০১৬ সালের সার্জিক্যাল স্ট্রাইকের কথাও নিজের বক্তব্যে তুলে এনেছেন তিনি। বলেছেন, “ভারতীয় সেনাদের শক্তি এবং ভারতের রাজনৈতিক তৎপরতাই দেশের সীমান্ত সুরক্ষিত রাখে, সেই প্রমাণ আগেই দেওয়া হয়েছে। গোটা বিশ্ব, বিশেষত যেসব দেশ সন্ত্রাসবাদকে প্রশ্রয় দেয় , তারা দেখেছে ভারত ঘরে ঢুকেই জঙ্গি হত্যা করতে পারে।”

এরপর সেনা জওয়ানদের উদ্দেশ্যে প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্য, “আপনাদের মতো সন্তান আছে বলেই ভারতের আজ নিজেকে রক্ষা করার ক্ষমতা আছে।” বস্তুত, গতকালই পাক সেনাদের সঙ্গে সংঘর্ষে ফের উত্তপ্ত হয়ে উঠেছিল কাশ্মীর সীমান্ত অঞ্চল। ভারতীয় সেনার পাল্টা আক্রমণে ৮জন পাকিস্তানী সেনা নিহত এবং ১২ জন আহত হয়েছে। এই ঘটনার পরদিন প্রধানমন্ত্রীর বক্তৃতায় ভারতের তরফ থেকে পাকিস্তানকে কড়া বার্তা দেওয়া হল।

উৎসবের মরশুমে এদিন পাকিস্তানের প্রতি যেন প্রথম থেকেই রুদ্র মূর্তিতে ছিলেন প্রধানমন্ত্রী। কাশ্মীর সীমান্তে বিনা প্ররোচনায় যুদ্ধ বিরতি চুক্তি লঙ্ঘন করে পাক সেনাদের হামলার পরিপ্রেক্ষিতে এদিন তিনি বলেন, “যাঁরা শান্তির ভাষা বোঝে না, তাদেরকে তাদের ভাষাতেই জবাব দেওয়া হবে৷ তা মাটিতেই হোক বা আকাশ পথে৷”

পাশাপাশি ভারতমাতার বীর সেনাদের কুর্নিশ জানিয়ে প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্য, “তুষার ঘেরা পাহাড় হোক বা শুষ্ক মরুভূমি, আপনাদের মাঝে না এলে আমার দেওয়ালি সম্পূর্ণ হয় না৷ আপনাদের মুখে হাসি দেখলে আমার আনন্দ দ্বিগুন হয়ে যায়৷ আজ দেশের মানুষ নিরাপদে তাঁদের দেওয়ালি পালন করতে পারছে আপনাদের জন্য৷”

Tags

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close
Close