দেশরাজনীতি

‘হিন্দুত্ববাদের সার্টিফিকেট দরকার নেই শিবসেনার’, বিজেপিকে কটাক্ষ সঞ্জয় রাউতের

মহানগরবার্তা ওয়েবডেস্ক: বিহার বিধানসভা নির্বাচনের পালা মিটলেও, শিবসেনা আর বিজেপির মধ্যে রাজনৈতিক তরজা এখনও জারি। গত বছরই গেরুয়া শিবিরের সঙ্গে জোট থেকে বেরিয়ে মহারাষ্ট্রে স্বতন্ত্র সরকার গঠন করেছে শিবসেনা দল। তারপর থেকে ভারতীয় জনতা পার্টির সঙ্গে তাদের দ্বৈরথ লেগেই আছে।

মঙ্গলবার শিবাজি পার্কের সামনে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলতে গিয়ে শিবসেনা দলের নেতা এবং রাজ্যসভার সদস্য সঞ্জয় রাউত নাম না করে ফের বার্তা দেন কেন্দ্রীয় শাসকদলের উদ্দেশ্যে। “শিবসেনা আগেও হিন্দুত্ববাদী ছিল এবং ভবিষ্যতেও থাকবে। হিন্দু ধর্মের প্রতি শিবসেনার নিষ্ঠা প্রমাণের জন্য অন্য কোনো দলের অনুমোদন প্রয়োজন নেই”, জানান সঞ্জয় রাউত। শিবসেনা দলের প্রতিষ্ঠাতা বাল ঠাকরের মৃত্যু বার্ষিকী উপলক্ষ্যে তাঁর প্রতি শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করতে মঙ্গলবার শিবাজি পার্কে হাজির হয়েছিলেন সঞ্জয় রাউত।

তিনি আরো জানান, “আমরা বরাবরই কট্টর হিন্দুত্ববাদী। যখনই দেশের প্রয়োজন হবে , শিবসেনা তাদের হিন্দুত্বের তরবারি নিয়ে সামনে হাজির হবে।” বস্তুত, শিবসেনার এই বার্তা যে পরোক্ষে বিজেপির প্রতি ইঙ্গিত করে তা বুঝতে বিশেষ অসুবিধা হয় না।

সম্প্রতি বিজেপির তরফ থেকে দিল্লির জওহরলাল নেহেরু ইউনিভার্সিটির নাম পরিবর্তনের যে দাবি উঠৈছে, সেই প্রসঙ্গেই সঞ্জয় রাউতের এই বার্তা বলে মনে করা হচ্ছে। স্বামী বিবেকানন্দের নামে জওহরলাল নেহেরু ইউনিভার্সিটির নতুন নামকরণের বিজেপির প্রস্তাব সমর্থন করেনি শিবসেনা। জাতীয় কংগ্রেসের নেতা হলেও জওহরলাল নেহেরু ভারতের গর্ব, বলা হয় শিবসেনা দলের তরফে। এর ফলেই শিবসেনা হিন্দুত্ববাদ থেকে সরে যাচ্ছে বলে অভিযোগ উঠতে শুরু করে।

এ বিষয়ে সঞ্জয় রাউতের বক্তব্য, “স্বামী বিবেকানন্দ বরাবরই আমাদের আদর্শ। কিন্তু নাম পরিবর্তন করে কী হবে? তা না করে বরং স্বামী বিবেকানন্দের নামে আরো একটি আন্তর্জাতিক মানের বড় ইউনিভার্সিটি তৈরি করা উচিত।” এছাড়াও, ভারতের প্রথম প্রধানমন্ত্রী জওহরলাল নেহেরু বরাবরই দেশের গর্ব বলেও মন্তব্য করেন শিবসেনা নেতা। রাজনৈতিক ঘৃণার কারণে তাঁর নাম বদল করা উচিত হবে না বলেই মত সঞ্জয় রাউতের।

Tags

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close
Close