দেশ

ছোট্ট শিশুর সার্জারির জন্য চাই ৭ লক্ষ টাকা, প্রাণে বাঁচালেন সেই সোনু সুদ’ই

মহানগরবার্তা ওয়েবডেস্ক: একদিকে করোনা ভাইরাসের অতিমারীর প্রকোপ,অন্যদিকে বিহার বিধানসভা নির্বাচনের ফলাফল নিয়ে উত্তাল রাজনৈতিক মহল, দেশের এহেন পরিস্থিতিতেও বিরাম নেই সোনু সুদের পরহিতব্রতে। প্রকৃত সাহায্যের হাত যে শত বিতর্কের মাঝেও সর্বদা বাড়ানোই থাকে, তাই যেন বারবার প্রমাণ করে দিচ্ছেন সোনু সুদ। এদিন ফের একবার নিজের মহত্ত্বের নমুনায় শিরোনামে উঠে এলেন ‘গরিবের ত্রাতা’ সোনু সুদ।

জানা গেছে, এবার তেলেঙ্গানার সিরসিল্লা রাজন্না জেলার এক চার মাসের শিশুর হার্ট সার্জারির দায়িত্ব নিয়েছেন সোনু সুদ। সোশ্যাল মিডিয়ায় নিজেই একথা জানান বলিউড অভিনেতা।সেই সঙ্গে ওই শিশুর দ্রুত আরোগ্য কামনাও করেছেন তিনি। নিজের ট্যুইটার হ্যান্ডেলে ওই শিশুর সার্জারির কথা জানিয়ে এদিন তিনি লেখেন, “এটা খুবই জরুরি একটা সার্জারি। ইনোভা হার্ট হসপিটালের ডক্টর কোনা সাম্বা মুর্থি আগামীকাল এই সার্জারি করবেন। শিশুটির দ্রুত আরোগ্য কামনা করি।”

জানা গেছে, ওই শিশুর নাম আদভাইথ শৌর্য। হার্টের জটিল রোগে আক্রান্ত সে। চিকিৎসকরা তাঁর বাবা মাকে জানিয়েছিলেন সার্জারির জন্য প্রয়োজন প্রায় ৭ লক্ষ টাকা। কিন্তু একটি ছোট কুরিয়ার কোম্পানির কর্মচারী হয়ে শিশুটির বাবার পক্ষে এই টাকা জোগাড় করা সম্ভব ছিল না। ফলে পরিচিতরা ট্যুইটারে সোনু সুদের দ্বারস্থ হন। যথারীতি দ্রুত সার্জারির ব্যবস্থা করে দেন অভিনেতা।

শিশুটির বাবা জানিয়েছেন, সোনু সুদ শুধুমাত্র হায়দ্রাবাদের বেসরকারি হাসপাতালে তাঁর সন্তানের সার্জারির ব্যবস্থাই করে দেন নি, চিকিৎসার জন্য সম্পূর্ণ খরচও জুগিয়েছেন। তাঁর এই পরহিতের মহান ব্রতকে আরো একবার কুর্নিশ জানিয়েছে সোশ্যাল মিডিয়ার নেট নাগরিকরা।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, বিশ্ব জুড়ে করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের জেরে গত মার্চ মাস থেকে দেশে শুরু হয় সম্পূর্ণ লকডাউন। আকস্মিক এই সিদ্ধান্তের ফলে প্রবল সমস্যার সম্মুখীন হয় দেশের নানা প্রান্তে ছড়িয়ে থাকা অসংখ্য পরিযায়ী শ্রমিক। এই অসহায় শ্রমিকদের ঘরে ফেরানোর উদ্দেশ্যে ত্রাতা হয়ে দেখা দেন সোনু সুদ। ব্যক্তিগত উদ্যোগে তিনি ঘরে ফেরান অজস্র মানুষকে। অভিনেতার এই উদ্যোগকে কুর্নিশ জানায় সারা দেশ। তারপর থেকে অসহায় দরিদ্র মানুষের দিকে তাঁর সাহায্যের হাতটা বেড়েই আছে।

Tags

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close
Close