দেশ

পা অচল! তবুও শারিরীক অক্ষমতাকে জয় করে দুই গ্রামের পঞ্চায়েত প্রধান এই সাহসিনী

মহানগরবার্তা ওয়েবডেস্ক: শারিরীক অক্ষমতা জীবনে চলার পথে প্রাথমিক বাঁধা সৃষ্টি করতে পারে ঠিকই, কিন্তু তা স্বপ্ন পূরণের চিরস্থায়ী প্রতিবন্ধক নয়। মনের জোর আর অদম্য ইচ্ছার সাহায্যে নানা কঠিন প্রতিকূলতা জয় করা যায়, আরো একবার সে কথাই প্রমাণ করে দিলেন মহারাষ্ট্রের এক মহিলা পঞ্চায়েত প্রধান। চোখে আঙুল দিয়ে তিনি দেখিয়ে দিয়েছেন কীভাবে নিজের শারিরীক প্রতিবন্ধকতাকে জয় করে এগিয়ে চলা যায়, এমনকি তুলে নেওয়া যায় দায়িত্বভারও। তাঁর রোজকার সংগ্রাম ভারতের হাজার হাজার মানুষকে নতুন করে বাঁচার পথ দেখাচ্ছে।

মহারাষ্ট্রের দুটি গ্রামের গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধান হলেন কবিতা ভোনদে। নাসিক জেলার দিনদোরি তালুকের অন্তর্গত দাহেগাঁও এবং ওয়াগলুদ গ্রাম দুটি চলে তাঁর শাসনে। বছর ৩৪-এর কবিতা বিশেষ ভাবে সক্ষম মহিলা। পায়ে সমস্যা থাকায় ক্রাচ নিয়ে হাঁটাচলা করেন তিনি। কিন্তু পায়ের প্রতিবন্ধকতা তাঁর সমাজসেবার পথে বাঁধা হতে পারে নি। তাঁর অধীনস্থ গ্রামের মানুষদেরও বিশেষ ভাবে সক্ষম এক মহিলাকে শাসক হিসেবে মেনে নিতে অসুবিধা হয় নি। পর পর দুবার ওই গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধান হিসেবে নির্বাচিত হয়েছেন কবিতা ভোনদে।

সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যম এনএনআই সূত্রের খবরে জানা গেছে, দিনদোরি তালুকের ওই পঞ্চায়েত প্রধান কবিতা ভোনদে বর্তমানে দ্বিতীয় বারের জন্য পঞ্চায়েতের দায়িত্ব পালন করছেন। দ্বিতীয় বার ক্ষমতা পেয়ে তিনি পঞ্চায়েতের কাজে একাধিক পরিবর্তনও এনেছেন। তাঁর অধীনস্থ দুই গ্রামের সমস্ত বেআইনি ও অপরাধমূলক প্রবণতাকে বন্ধ করার জন্য পদক্ষেপও গ্রহণ করেছেন। তাঁর এসমস্ত কাজের পথে বাঁধা হয় নি সবসময়ের সঙ্গী দুটো ক্রাচ।

বস্তুত, সমাজ সেবামূলক জনপ্রতিনিধির পদে কোনো বিশেষ ভাবে সক্ষম ব্যক্তির সফল নির্বাচন কার্যত বিরল। কবিতা ভোনদের মনের জোরকে কুর্নিশ জানিয়েছেন সকলেই। পাশাপাশি এদেশের হাজার হাজার তরুণ প্রজন্ম, যাঁরা শারিরীক অক্ষমতাকে স্বপ্ন পূরণের পথে বাঁধা মনে করেন, কবিতা ভোনদের দৃষ্টান্ত আরও একবার জীবন নিয়ে তাঁদের ভাবতে বাধ্য করে।

Tags

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close
Close