দেশবিনোদন

“সুশান্ত শান্তি চাইতেন, রিয়ার সঙ্গে অভদ্রতা বন্ধ হোক”, রিয়ার জন্য মুখ খুললেন এই অভিনেত্রী

মহানগর বার্তা ওয়েবডেস্ক: সুশান্ত সিং রাজপুত মৃত্যু মামলায় এবার মুখ খুললেন অভিনেতার কাছের বন্ধু অন্বেষা মাধক। সুশান্তের বান্ধবী রিয়া চক্রবর্তীর সঙ্গে হওয়া আচরণের প্রতিবাদ করেন তিনি। অভিনেতার শান্ত স্বভাবের কথা স্মরণ করিয়ে দিয়ে এদিন তিনি বলেন, সুশান্তের বান্ধবী রিয়া চক্রবর্তীর সঙ্গে ভদ্র আচরণ করা উচিত। কারণ তাঁর বন্ধু সুশান্ত ছিলেন শান্তিপ্রিয় মানুষ। তিনি জীবিত থাকলে কখনোই এই ঘৃণা, বিদ্বেষকে সমর্থন করতেন না।

মৃত সুশান্তের স্মৃতিচারণা করতে গিয়ে অন্বেষা এদিন জানান সুশান্ত কখনোই খুব একটা ঝামেলায় থাকতে পছন্দ করতেন না। তিনি শান্তি চাইতেন। তাই রিয়া চক্রবর্তীর সঙ্গে যে আচরণ করা হচ্ছে, তাঁর বন্ধু জীবিত থাকলে কখনোই তা হতে দিতেন না। কারণ মানুষ মানুষকে ঘৃণা করুক, তা তিনি চাইতেন না। “সুশান্ত সিং রাজপুতের বন্ধু হিসেবে আমি সবসময় চাই ওঁর ঘটনাটার গুরুত্ব সহকারে তদন্ত হোক। ওঁর আত্মার শান্তি চাই আমি। কিন্তু একই সঙ্গে আমি মনে করি, রিয়ার সঙ্গে ভদ্র আচরণ করা উচিত। ওঁর সঙ্গে ভদ্র ব্যবহার করা উচিত।

এসব কথার পিছনে কারণ হিসেবে অন্বেষা এও বলেন যে, সুশান্ত শান্তি ভালোবাসতেন। কখনোই চাইতেন না মানুষ মানুষকে ঘৃণা করুক।” এখানেই থেমে থাকেন নি অন্বেষা। তিনি আরো বলেন, ” আমি শুধু আমার বন্ধু সুশান্তের জন্য ন্যায় বিচার চাই, আর কিছু না। আজ যা হচ্ছে তা ঠিক না ভুল, সেটা সময় বলবে।” একইসঙ্গে সুশান্তের ঘটনা নিয়ে বলিউডকে বিচ্ছিন্ন না হওয়ায় বার্তা দেন তিনি। বলেন , “এটা একটা বহুস্তরীয় পরিস্থিতি। এমতাবস্থায় সকলকে একসঙ্গে জোট বেঁধে থাকতে হবে। বলিউডের ভাঙন কখনোই কাম্য নয়। সেখানে যেন ভেদাভেদ সৃষ্টি না হয়।”

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, গত জুন মাসে সুশান্ত সিং রাজপুতের আকস্মিক মৃত্যুর পর থেকে সোশ্যাল মিডিয়ায় যে তোলপাড় শুরু হয় তার জেরে সুশান্তের বান্ধবী রিয়া চক্রবর্তীকে ড্রাগ চক্রের সঙ্গে যুক্ত থাকার অভিযোগে গ্রেফতার করে নারকোটিকস কন্ট্রোল ব্যুরো বা এনসিবি।এরপর থেকেই সুশান্তের সঙ্গে ন্যায় বিচারের দাবির পাশাপাশি রিয়া চক্রবর্তী সম্বন্ধে কুরুচিকর অশালীন মন্তব্যে ছেয়ে যায় সোশ্যাল মিডিয়া। এই প্রেক্ষাপটে অভিনেতার কাছের বান্ধবী অন্বেষা মাধকের আজকের বক্তব্য বিশেষ তাৎপর্যপূর্ণ।

Tags

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close
Close