রাজ্য

পুজোয় ক্লাবগুলোর মতো, ঈদেও কি অনুদান দেওয়া হয়? হাইকোর্টে প্রশ্নের মুখে রাজ্য সরকার

রাজ্যে দুর্গাপুজো আয়োজনকারী ক্লাব গুলিকে সরকারের তরফ থেকে আর্থিক অনুদান দেওয়ার বিষয়ে এবার প্রশ্ন তুলল হাইকোর্ট। দুর্গাপুজোর ক্লাব গুলোকে কেন অনুদান দেওয়া হয়, ঈদের ক্ষেত্রেও কি একই পদক্ষেপ নেয় রাজ্য সরকার? এই প্রশ্ন তুলে আগেই হাইকোর্টে দায়ের করা হয়েছিল জনস্বার্থ মামলা। সেই মামলার শুনানিতে আজ ফের হাইকোর্টের প্রশ্নের মুখে রাজ্য সরকার৷

সিটু নেতা সৌরভ দত্তের এই জনস্বার্থ মামলা দায়ের করা হয়েছিল সরকারের ক্লাব গুলিকে আর্থিক সাহায্যের প্রতিশ্রুতির পরেই।মামলাকারীর তরফে দাবি করা হয়েছিল, সরকারি অনুদান দেওয়ার ঘোষণা সংবিধানের ধর্মনিরপেক্ষতার পরিপন্থী৷ একই সঙ্গে পুরোহিতদের কেন ভাতা দেওয়া হবে? সে প্রশ্নও মামলার আবেদনে যুক্ত করা হয়৷ রাজ্যের সর্বোচ্চ আদালতে সেই মামলারই শুনানির দিন ছিল আজ।

শুনানি পর্বে বিচারপতি সঞ্জীব বন্দ্যোপাধ্যায়ের ডিভিশন বেঞ্চ রাজ্য সরকারের কাছে প্রশ্ন তুলেছে, অনুদান কি শুধু দুর্গা পুজাতেই দেয় সরকার? নাকি অন্য উৎসবেও দেওয়া হয়?ঈদেও কি দেওয়া হয়েছিল? শুধু প্রশ্ন তুলেই থামে নি হাইকোর্ট। রাজ্য সরকারের এই উদ্যোগের প্রসঙ্গে তাঁদের বক্তব্য, “দুর্গাপুজো নিয়ে আমরাও গর্বিত, কিন্তু তাই বলে কি যেভাবে ইচ্ছা টাকা দেওয়া যায়? গণতান্ত্রিক ব্যবস্থায় কি এই ভেদাভেদ করা যায়? আপনারা বলছেন, এই টাকা দেওয়া হচ্ছে মাস্ক-সেনিটাইজার কেনার জন্য৷ এটা তো সরকার নিজেই কেন্দ্রীয়ভাবে কিনে বিলি করতে পারত৷ তাতে খরচ কম হত৷”

এছাড়াও তোলা হয়েছে আরো প্রশ্ন। “যেখানে সংক্রমণের জন্য শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এখনও বন্ধ, সেখানে পুজোর অনুমতি কীভাবে দেওয়া হচ্ছে? কী কী সুরক্ষা বিধি মানা হচ্ছে? ভিড় নিয়ন্ত্রণে ব্লু-প্রিন্ট কী? সব কাজ পুলিশ করলে ক্লাবকে টাকা দেওয়ার কি যুক্তি?” রাজ্য সরকারের প্রতি এক গুচ্ছ প্রশ্ন ছুঁড়ে দিয়েছেন হাইকোর্টের বিচারপতি সঞ্জীব বন্দ্যোপাধ্যায়৷

প্রসঙ্গত, করোনা আবহে রাজ্য জুড়ে শুরু হয়েছে দুর্গোৎসবের তোড়জোড়।এই মাঝে পুজো আয়োজনকারী ক্লাব গুলিকে আর্থিক অনুদান দিয়ে সাহায্য করার কথা ঘোষণা করেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এছাড়াও কিছুদিন আগেই বলেছিলেন পুরোহিতদের সাহায্যের কথাও। সেই পদক্ষেপের প্রেক্ষিতেই করা হয়েছিল জনস্বার্থ মামলা।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close
Close