রাজ্য

“আমার ঠিকানা”, সাংবাদিক সম্মেলনে মুখ্যমন্ত্রীর লেখা কবিতা পাঠ করলেন কাকলি ঘোষ দস্তিদার

মহানগরবার্তা ওয়েবডেস্ক: পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সাহিত্যচর্চা কিংবা ছবি আঁকার গুণ আজ আর কারোরই অবিদিত নেই। ইতিমধ্যে তাঁর লেখা একাধিক কবিতার বই প্রকাশিত হয়েছে, তাঁর আঁকা ছবি গুলিও প্রশংসা কুড়িয়েছে ভক্ত মহলে। এবার তেমনই এক কবিতা সকলের সামনে পাঠ করলেন তৃণমূল কংগ্রেস নেত্রী কাকলি ঘোষ দস্তিদার।

এদিন একটি তৃণমূল ভবন থেকে সাংবাদিক সম্মেলনে যোগ দিয়ে সরকারি নানা কর্মসূচি নিয়ে কথা বলেন বারাসাত লোকসভা কেন্দ্রের তৃণমূল কংগ্রেস সাংসদ কাকলি ঘোষ দস্তিদার। সেখানেই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের লেখা একটি কবিতা পাঠ করে শোনান তিনি। এর মাধ্যমে রাজ্যের মানুষের প্রতি মুখ্যমন্ত্রীর সমর্পণকেই মূলত প্রকাশ করতে চেয়েছেন তৃণমূল কংগ্রেসের নারী সমিতির চেয়ারপার্সন।

কোন কবিতা পাঠ করেছেন কাকলি দেবী? কবিতার নাম ‘আমার ঠিকানা’। সিঙ্গুরের অনশন মঞ্চে বসে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এই কবিতা লিখেছিলেন বলে জানিয়েছেন তিনি। তিনি জানান, বাম সরকারের আমলে কি পরিমাণ লাঞ্ছনার মুখোমুখি হতে হয়েছিল মুখ্যমন্ত্রীকে, সেই বর্ণনাকেই এই কবিতায় তুলে ধরা হয়েছে।

“সবুজ ক্ষেতে রেখে যেতে চাই শস্যের আঙিনা” এই লাইনের ব্যাখ্যা করে কাকলি ঘোষ দস্তিদার বলেন, “তিনি স্বপ্ন দেখেছেন সবুজ ক্ষেতটা শস্যের আঙিনা হয়ে গেছে।” এরপরের লাইন নিয়ে তাঁর বক্তব্য, “মাটিতে ধুলোয় রাস্তায় পড়েছিলেন তিনি, তাই লিখছেন, ‘রাস্তার নিকট রেখে গেলাম আমি সব ব্যথা বেদনা, ধুলোর নিকট জমা রাখতে চাই নতুন ঘোষণা।”

এখানেই শেষ নয়, বাম আমলের প্রশাসনের বিরুদ্ধে তীব্র অভিযোগ করে কাকলি ঘোষ দস্তিদার এদিন বলেন, “তাঁকে (মুখ্যমন্ত্রীকে) মেরে চুলের মুঠি ধরে পাঁজাকোলা করে সিঙ্গুরের বিডিও অফিস থেকে মাঝ রাত্তিরে বামফ্রন্টের পুলিশ টেনে হিচরে বার করে দিয়েছিল।” এভাবেই মুখ্যমন্ত্রী রচিত কবিতার ব্যাখ্যা করেন কাকলি ঘোষ দস্তিদার।

উল্লেখ্য, রাজ্যের বিধানসভা নির্বাচন আর বেশি দূরে নেই। কার্যত ভোটের দামামা বেজে গেছে রাজ্যে। গত বছরের লোকসভা নির্বাচনকে হাতিয়ার করে ক্ষমতা দখলের লড়াইয়ে কোমর বেঁধে নেমেছে বিজেপি। এমতাবস্থায় শাসক শিবিরও যে উঠে পড়ে লেগেছে ক্ষমতা ধরে রাখার লড়াইয়ে, তা বলাই বাহুল্য।

Tags

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close
Close