রাজনীতি

‘হিন্দুত্বের সার্টিফিকেট চাই না’, ধর্মীয় স্থান খোলার বিরুদ্ধে কড়া মন্তব্য উদ্ধব ঠাকরের

মহানগর বার্তা ওয়েবডেস্কঃ মহারাষ্ট্রের রাজ্যপাল ভগত সিং কোশ্যারিকে কড়া বার্তা দিলেন মুখ্যমন্ত্রী উদ্ধব ঠাকরে। রাজ্যপালের একটি চিঠির জবাবে মুখ্যমন্ত্রী জানান তাঁর কোনো হিন্দুত্বের সার্টিফিকেটের প্রয়োজন নেই। শোনা যাচ্ছে ওই চিঠিতে রাজ্যপাল তাঁকে রাজ্যের ধর্মীয় স্থানগুলি আবার জনসাধারণের জন্য খুলে দেওয়ার অনুরোধ করেছিলেন।

উদ্ধব ঠাকরের প্রতি চিঠিতে কোশ্যারি লিখেছিলেন, “আপনি একজন বড় হিন্দু ভক্ত। সর্বসাধারণের সামনেই আপনি ভগবান রামচন্দ্রের প্রতি আপনার ভক্তি জাহির করেছেন। তাছাড়া আপনি অশাদি একাদশীতে ভিত্থল রুক্মিণী মন্দিরও দর্শন করেছেন।” মুখ্যমন্ত্রীর হিন্দু ভক্তির পরিচয় দিয়েই শুধু থেমে থাকেননি রাজ্যপাল। বিতর্ক উস্কে দিয়ে তাঁর আরো বক্তব্য, “আমি ভাবছিলাম, আপনি কি রাজ্যের ধর্মীয় উপাসনা স্থল গুলিকে বন্ধ করে রাখার জন্য কোনো দৈবী আদেশ পাচ্ছেন? নাকি আচমকা আপনি ধর্মনিরপেক্ষ ব্যক্তিত্বে পরিণত হয়েছেন?”

রাজ্যপাল ভগত সিং কোশ্যারির এহেন মন্তব্য মোটেই ভালো চোখে দেখেননি মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী উদ্ধব ঠাকরে। এই চিঠির জবাবে তিনি সাফ জানিয়ে দিয়েছেন, “আমি আপনার কাছ থেকে কোনোরকম হিন্দুত্বের সার্টিফিকেট চাই না।”

বস্তুত, মহারাষ্ট্রের সরকারকে আক্রমণ করে রাজ্যপাল কোশ্যারি আরো বলেছিলেন, লকডাউনের পর যেভাবে রাজ্যে বার এবং রেস্টুরেন্ট গুলি পুণরায় খুলে দেওয়া হয়েছে, অথচ ধর্মীয় উপাসনালয় গুলিকে এখনও বন্ধ রাখা হয়েছে তা সত্যিই বিচিত্র, বিস্ময়কর। তাঁর কথায়, “এটা খুবই অদ্ভুত যে একদিকে সরকার বার এবং রেস্টুরেন্ট গুলিকে খুলে দিয়েছে, কিন্তু অপর দিকে ভগবানকে এখনও লকডাউনে আবদ্ধ করে রাখা হচ্ছে।”

এ বিষয়ে রাজধানী দিল্লির প্রসঙ্গ তুলে রাজ্যপাল জানিয়েছেন দিল্লিতে জুন মাস থেকেই ধর্মীয় স্থানগুলি খুলে দেওয়া হয়েছে কিন্তু তা থেকে নতুন করে কোনো করোনা সংক্রমণের হদিশ পাওয়া যায় নি।” আমি আপনার কাছে অনুরোধ করছি যে সমস্ত করোনি বিধি মেনে রাজ্যের ধর্মীয় উপাসনালয় গুলি আপনি আবার খুলে দেওয়ার ব্যবস্থা করুন।” বলেছেন কোশ্যারি।

রাজ্যপালের এই চিঠির কথা সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে গেলে তা বিতর্কের জন্ম দিয়েছে একাধিক রাজনৈতিক মহলে। শিবসেনা নেতা নেত্রীরা এর তীব্র সমালোচনা করেছেন। এবং সেই সূত্রেই এসেছে মুখ্যমন্ত্রীর কড়া জবাব।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close
Close