দেশরাজনীতি

১০ বছর ধরে ঝাঁট দিয়েছেন অফিসঘর, ভোটে জিতে আজ সেখানেই পঞ্চায়েত প্রধান হলেন আনন্দাবলী

মহানগরবার্তা ওয়েবডেস্ক: আবহাওয়া দপ্তরের খবর বলছে শীতের শুরুতে রাজ্যের পারদ নেমে গেছে অনেকটাই। কিন্তু বাংলার রাজনীতির দিকে চোখ রাখলে তা বোঝার উপায় নেই। একুশের বিধানসভা নির্বাচন যতই এগিয়ে আসছে রাজনৈতিক বাদানুবাদে ততই উত্তাপ ছড়াচ্ছে বাংলার পরিস্থিতিতে। এমতাবস্থায় কেরলের বাম সরকারের এক নজিরবিহীন দৃষ্টান্ত সামনে আনলেন পশ্চিমবঙ্গের সিপিআইএম নেতা সূর্য্যকান্ত মিশ্র।

সম্প্রতি সম্পন্ন হয়েছে কেরালার পঞ্চায়েত ভোট। সেই ভোটে বিজয়ী এক বামপন্থী প্রার্থীর দৃষ্টান্তই এদিন সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে সকলের সামনে এনেছেন সূর্য্যকান্ত মিশ্র। জানা গেছে, গত ১০ বছর ধরে পঞ্চায়েত অফিস ঝাঁট দিতেন যেই মহিলা কর্মী তিনিই এবার জনগণের ভোটে জিতে পঞ্চায়েত প্রধানের পদে মনোনীত হয়েছেন। কেরালার সিপিআইএম-এর সঙ্গেই দীর্ঘদিন ধরে যুক্ত ছিলেন ওই মহিলা।

এদিন সূর্য্যকান্ত মিশ্র নিজের অফিসিয়াল ফেসবুক পেজ থেকে যে খবর শেয়ার করেছেন তা থেকে জানা গেছে কেরালার ওই মহিলা পঞ্চায়েত প্রধানের নাম এ.আনন্দাবলী। তিনি ২০১১ থেকে ২০২০ টানা ১০ বছর ধরে পঞ্চায়েত অফিসে পার্ট টাইম সুইপারের কাজ করেছেন। ৪৬ বছরের আনন্দাবলীর প্রথম দিকে বেতন ছিল ২০০০ টাকা, পরে তা বেড়ে হয়েছে ৬০০০ টাকা। সূর্য্যকান্ত মিশ্র লিখেছেন, “আনন্দাবলী এবং তাঁর স্বামী সিপিএম করেন। জীবনের শত প্রতিকূলতা সত্ত্বেও একদিনের জন্যেও ওনারা লাল ঝান্ডা ছাড়েন নি।”

https://www.facebook.com/1541882679462749/posts/2892223197762017/?flite=scwspnss

সূর্য্যকান্ত বাবু আরো জানিয়েছেন, “দলের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী এবার পঞ্চায়েত ভোটে আনন্দাবলী লড়েছেন, জিতেছেন, আর মনোনীত হয়েছেন নিজের পঞ্চায়েত মানে কেরালার পাথানাপুরামের পঞ্চায়েতের প্রেসিডেন্ট হিসেবে।”

বস্তুত, যে অফিস ঘর ১০ বছর ধরে ঝাঁট দিয়ে পরিষ্কার করে এসেছেন, আজ সেই অফিসের প্রধানের চেয়ারের জায়গা করে নিয়েছেন তিনি। সূর্য্যকান্ত মিশ্র জানিয়েছেন, “দলিত কমরেড আনন্দাবলী অসংখ্য শুভেচ্ছা আর হাততালির মধ্যে দিয়ে সেই অফিসেই সেই চেয়ারে বসেই কার্যভার গ্রহণ করলেন। আর তারপর কাঁদতে কাঁদতে বললেন, ‘একমাত্র আমার দলই এভাবে ভাবতে পারে।” সোশ্যাল মিডিয়ায় পঞ্চায়েত প্রধান আনন্দাবলীকে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন সূর্য্যকান্ত মিশ্র।

বস্তুত, আজকের ভারতে, যখন নানা প্রান্ত থেকে সমাজের তথাকথিত নিম্নবর্ণের মানুষের উপর অত্যাচারের একাধিক খবর উঠে আসছে, তখন দলিত মহিলাকে সাংবিধানিক পদে মনোনীত করে কেরালার বাম সরকার জাতপাতের বিরুদ্ধে যে বার্তা দিলেন, তা নিঃসন্দেহে প্রেরণা জোগাবে অনেকের মনে।

Tags

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close
Close